মেইন ম্যেনু

পাক-ভারত ম্যাচ দেখতে মিরপুরে উপচে পড়া দর্শক

বিশ্ব ক্রিকেটে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ মানেই রাজ্যের উত্তেজনা। থাকে রোমাঞ্চের হাতছানি। পৃথিবীর যে প্রান্তে পাক-ভারত লড়াই হোক না কেন এই ম্যাচের আবহ থাকে অন্যরকম। শনিবার মিরপুরে সন্ধ্যায় এশিয়া কাপে এই দল দুটো একে অপরের মুখোমুখি হবে। এই ম্যাচটি দেখতে দুই দলের ভক্ত-সমর্থকরা ভিড় করতে শুরু করেছে মিরপুরে। এমনকি অনেকে নিজ দেশ থেকেও এসেছে এমন একটি স্নায়ু-ক্ষয়ী ম্যাচ দেখতে। সারা শরীরে ভারতের পতাকার রংয়ে নিজেদেরকেও রাঙিয়েও নিয়েছেন তারা। তেমনি এক ভক্ত হলেন রাম বাবু।

ভারতের চন্ডিগড় থেকে এসেছেন এই ধোনি ভক্ত। ভারতীয় অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির খেলা খুবই পছন্দ করেন। পৃথিবীর যে প্রান্তে ভারত দলের খেলা হোক না কেন তার যাওয়া চায়। ধোনির খেলা খুবই পছন্দ করেন। তাইতো ভারতের অধিনায়কের পরিহিত সাত নাম্বার জার্সিটাও তার নিজ শরীরে এঁকেও নিয়েছেন রাম বাবু।

বাংলাদেশে এবার তার প্রথম আসা নয়। এরআগে ২০১৪ সালে টি২০ বিশ্বকাপে খেলা দেখতে এসেছিলেন। তবে সেবার ভারত দল শিরোপা জিততে ব্যর্থ হয়েছিল। তাই এবার এশিয়া কাপটা ভারত জিতবে বলে জানালেন রাম বাবুল। একই সঙ্গে শনিবারের ম্যাচেও পাকিস্তানকে হারাবে বলে ধোনির দলের ওপর বিশ্বাসও আছে তার।

শনিবার ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে তুলনামূলকভাবে ভারত থেকে দর্শকের সংখ্যাটাই বেশি হারে দেখা গেছে। তবে তার মধ্যেও ব্যতিক্রম ছিলেন শায়লা আজম। পাকিস্তানি এই নারী সমর্থক তার দুই বান্ধবীকে নিয়ে মিরপুরে খেলা দেখতে এসেছেন। সাংবাদিক শুনে খুব বেশি কথা বলতে রাজী হলেন না তিনি। শুধু বললেন বাবার চাকুরীর সুবাদে তারা বাংলাদেশে অবস্থান করছেন। পড়াশুনা করছেন নর্থ সাউথ ইউনির্ভাসিটিতে। শায়লা তার দুই গালে প্রিয় দল পাকিস্তানের পতাকা এঁকে নিয়েছেন। বললেন শনিবারে ম্যাচে ভারতকে হারাবে পাকিস্তান।

রাম বাবুর মতো অতোটা ধোনি ভক্ত নন দিল্লি থেকে আসা ভারতীয় সমর্থক জিতেন্দ্রর রায়। ধোনির চেয়ে তার কাছে বেশি ভালো লাগে বিরাট কোহলির খেলা। বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো এসেছেন তিনি। তাই পাকিস্তানের সঙ্গে শনিবার তার দল জিতবে বলে জানালেন জিতেন্দ্রর। বললেন, পাকিস্তানের যতোই ভালো পেস বোলিং অ্যাটাক থাকুক না কেন অতীতের মতো এবারের এশিয়া কাপেও পাকিস্তানকে হারাবে ভারত।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাস্ট্রবিজ্ঞানের দ্বিতীয় বর্ষে পড়ুয়া গোপালগঞ্জের শেখ হাসানাত তার তিন বন্ধুকে নিয়ে পাক-ভারত মহারণ দেখতে এসেছেন। ছোটবেলা থেকেই পাকিস্তান দলের খেলা ভালো লাগে। তবে হাসনাতের অপর তিন বন্ধু আবার পাকিস্তানের অন্ধ ভক্ত নন। তাদের দুইজন নিরঞ্জন ও মামুন আবার ভারতের সমর্থক। তবে তার তৃতীয় বন্ধু সুমন হাসানাতের মতো পাকিস্তানের দলের খেলা পছন্দ করেন। তাই বলে বাংলাদেশের খেলা হলে আগে বাংলাদেশকে সমর্থন করেন বলে তারা জানান।

সবাই পায়ে হেঁটে ভারত-পাকিস্তানের ম্যাচ দেখতে গ্যালারী দিয়ে প্রবেশ করছেন। ঠিক তখন হুইল চেয়ারে করে পাক-ভারত মহারণ দেখতে এসেছেন তেজগাঁও কলেজে সমাজ কল্যাণের তৃতীয় বর্ষে পড়ুয়া শারীরিক প্রতিবন্ধী মাসুদ রানা। এদিন তারা তাদের সংগঠনের ২০জনকে নিয়ে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ দেখতে এসছেন বলেন জানান মাসুদ রানা। ডিএসক্সচেইন নামে এই সংগঠনটি মূলত সমাজে প্রতিবন্ধীদের নিয়ে কাজ করে থাকে।

তবে মাসুদ রানা ভারত ও পাকিস্তান কোনো দলের সমর্থন করেন না। নিজ দল বাংলাদেশের খেলাই তার কাছে ভালো লাগে। তবে সংগঠনের সবাই চেয়েছিলেন এশিয়া কাপে পাক-ভারত ম্যাচ দেখতে, সেই জন্য তার মিরপুর স্টেডিয়ামে ছুটে আসা। মাসুদ বলেন, জন্মের পর থেকে কখনোই পাকিস্তানকে পছন্দ করেন না। যাও একটু তার কাছে ভারতের খেলা ভালো লাগতো কিন্তু ওয়ানডে বিশ্বকাপে বাংলাদেশের বিপক্ষে ভারতের ওই ঘটনার পর আর ভালো লাগে না ধোনি-কোহলিদের খেলা। তবে আজ ভারত ও পাকিস্তান ভালো একটি খেলা হবে বলে মনে করেন তিনি।






মন্তব্য চালু নেই