মেইন ম্যেনু

পায়ের শিরায় টান লাগে কেন?

পায়ে শিরাটান খুব যন্ত্রণাদায়ক। বিশেষত রাতের বেলা এই সমস্যা হয়। এই শিরাটান কয়েক সেকেন্ড থেকে কয়েক মিনিটের মধ্যে শেষ হয়ে যায়। যে কোনো বয়সে এটি হতে পারে। তবে মধ্য ও প্রবীণ বয়সী লোকদের এই সমস্যা বেশি হয়। অনেক সময় এটি প্রায়ই বয়ঃসন্ধিকালে হয় এবং রাতে ব্যায়াম করলে হয়। এই শিরাটানের পেছনে কিছু কারণ রয়েছে। স্বাস্থ্যবিষয়ক ওয়েবসাইট টপ টেন হোম রেমেডি জানিয়েছে কারণের কথা।

১. পানিশূন্যতা

শরীর ও মনের স্বাস্থ্যকে ভালো রাখতে আর্দ্র থাকা জরুরি। এটি পেশির কার্যক্রমের ওপর প্রভাব ফেলে। পানি পেশির টিস্যুকে শিথিল করতে কাজ করে। পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান না করলে এই সমস্যা হতে পারে।

২. অপুষ্টি

শরীরে যেকোনো ধরনের পুষ্টির অভাব হলে এই সমস্যা হতে পারে। মিনারেল পেশিকে সঠিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করে। পুষ্টির ঘাটতি পূরণে তাই স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া জরুরি।

৩.  অনেকক্ষণ ধরে দাঁড়িয়ে থাকলে

উঁচু হিল বা আঁটসাট জুতা পরে অনেক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকলে পায়ের শিরাটানের সমস্যা হতে পারে। গবেষণায় বলা হয়, দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থাকার কাজ করলে এই সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা হয়।

৪. গর্ভাবস্থা

গর্ভবতী নারীদের এই সমস্যা হতে পারে। সাধারণত গর্ভধারণের চতুর্থ মাস থেকে শুরু হয়ে শেষ মাস অবধি এই সমস্যা হতে পারে। জরায়ুর মধ্যে চাপের কারণে পায়ের স্নায়ুতে চাপ পড়ে সাধারণত এই সমস্যা হয়।

৫. থাইরয়েড হরমোনের ঘাটতি

শরীরে থাইরয়েড হরমোনের ঘাটতি হলে এই সমস্যা হয়। এই হরমোন ক্যালসিয়ামের শোষণে প্রভাব ফেলে। ক্যালসিয়ামের অভাবে পেশিতে দুর্বলতা, অবসন্নতা, ব্যথা, শিরাটান লাগার সমস্যা হয়।

এ ছাড়া অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস, অতিরিক্ত মদ্যপান এবং কিছু ওষুধের কারণে পায়ে শিরাটান হতে পারে।






মন্তব্য চালু নেই