মেইন ম্যেনু

পায়ে হেঁটেই ভিন রাজ্যে বিয়ে করতে গেলেন গ্রাজুয়েট করা কনে!

‌‘আমার বিয়ে আমার কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। বিয়েতে ৬০০ জনকে নিমন্ত্রণ করেছিলাম। কিন্তু এসেছেন মাত্র ২০ জন’।

রাস্তায় হাঁটতে হাঁটতে বলছিলেন বেঙ্গালুরুর বছর পঁচিশের যুবতী প্রেমা। কনে যাত্রীদের সঙ্গে নিয়ে কিলোমিটারের পর কিলোমিটার রাস্তা হেঁটে বিয়ে করতে যাচ্ছিলেন তিনি।

হাঁটা ছাড়া যে অন্য উপায়ও নেই। তামিলনাড়ু ও কর্নাটকের মধ্যে কাবেরী নদীর পানি ঘিরে বিবাদ। যার ফল ভোগ করতে হলো সাধারণ মানুষকে।

ইন্দো ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, কমার্স গ্রাজুয়েট প্রেমার সঙ্গে বিয়ে ঠিক হয়েছিল তামিলনাড়ুর এক যুবকের। কিন্তু দুই প্রতিবেশী রাজ্যের মধ্যে বন্ধ যান চলাচল। ফলে অগত্যা পায়ে হেঁটে, অটোতে চেপে বিয়ে করতে বাড়ি থেকে বেরিয়েছিলেন কর্নাটকের প্রেমা।

বেঙ্গালুরুর হোসুর সীমান্তে দাঁড়িয়ে ক্লান্ত প্রেমা জানালেন, ‘আমি বেঙ্গালুরু থেকে কয়েক কিলোমিটার হেঁটে এখানে এলাম। যান চলাচল প্রায় বন্ধ। ফলে এভাবেই আসতে হচ্ছে’। তবে তারপরও তাদের ১১০ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করতে হবে।

প্রেমার পরনে নতুন শাড়ি, গা ভর্তি গয়না। তার সহযাত্রীদের হাতে উপহারসামগ্রী। তাদের এখন আনন্দ করা উচিত, কিন্তু দুই রাজ্যের বিবাদ কেড়ে নিল তাদের আনন্দ।

প্রেমা বলেই ফেললেন, ‘আমি শুধু বলতে চাই, আমাদের বোঝা উচিত যে, আমরা সবাই ভারতীয়। কর্ণাটক বা তামিলনাড়ু দুই রাজ্যের মানুষই এতে সমস্যা ভোগ করছি। এভাবে সমস্যার সমাধান সম্ভব হবে না’।

প্রেমা একা নন, গতকালকের যান চলাচল বন্ধের জেরে সমস্যায় পড়তে হয়েছে সাধারণ মানুষকে। পথে নেমে চূড়ান্ত দুর্ভোগের শিকার হন যাত্রীরা।






মন্তব্য চালু নেই