মেইন ম্যেনু

পিরামিডের ভেতরে রহস্যময় গরম পাথরের সন্ধান!

এমনিতেই পিরামিড বিজ্ঞানী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষের কাছে এক অমীমাংসিত বিস্ময়।যা নিয়ে প্রতিনিয়তই বিভিন্ন নতুন নতুন তথ্য আবিষ্কৃত হচ্ছে। এমনই এক রহস্য আবারো গ্রাস করলো বিজ্ঞানীদের। পিরামিডের অভ্যন্তরে প্রচণ্ড তাপ সৃষ্টিকারী উৎসের সন্ধান পেয়েছেন তারা। এখনো উৎস চিহ্নিত হয়নি। কিন্তু রহস্যময়ভাবে সেখান থেকে তাপের উদগীরণ ঘটছে।

একদল প্রকৌশলী ও বিজ্ঞানী গিজার গ্রেট পিরামিডের একেবারে নিচে এমন তাপ সৃষ্টিকারী তিনটি পাথরের সন্ধান পেয়েছেন। এগুলো কি কারণে এবং কিভাবে তাপ ছড়াচ্ছে তা এখনও বোধগম্য নয়। পিরামিডের অভ্যন্তরে লুকানো প্রকোষ্ঠের সন্ধান করছিলেন তারা। তখনই তাপমাত্রার এই রহস্যময় বিষয়টি উপলব্ধি করেন।

তারা ধারনা করছেন কোনো এক অজানা কারণে এই তাপমাত্রার পার্থক্য ঘটছে। সম্ভবত এটা অভ্যন্তরীণ বায়ু চলাচলের ব্যবস্থার সঙ্গে জড়িত।

গিজার গ্রেট পিরামিড তৈরি করা হয় খ্রিষ্টপূর্ব ২৬০০ অব্দে। গিজার তিনটি পিরামিডের মধ্যে এটাই সবচেয়ে বড় এবং পুরাতন। এটা ফারাও সম্রাট খুফুর নামে তৈরি হয়েছিল।

গবেষকদের দলটি অপারেশন স্ক্যান পিরামিড প্রজেক্ট নিয়ে কাজ করছিলেন। এ গবেষণায় নতুনভাবে উত্তপ্ত পাথরের সন্ধান রহস্য সৃষ্টি করেছে। খুফু পিরামিডের পূর্ব অংশের একেবারে নিচের দিকের বিশেষ কিছু অংশ থেকে তাপমাত্রা ছড়াচ্ছে। তাপের এমন উৎস পিরামিডের মাঝামাঝির কিছুটা উপরের দিকেও পাওয়া গেছে।

তবে এই বিশেষ রহস্য নিয়ে বিস্তর গবেষণার চিন্তা-ভাবনা করছেন বিজ্ঞানীরা। এই প্রজেক্টের অংশ হিসেবেই রহস্যের সন্ধান করবেন তারা। এই প্রজেক্টটি চলবে ২০১৬ সালের শেষ পর্যন্ত।






মন্তব্য চালু নেই