মেইন ম্যেনু

পুকুর পাড়ে ডেকে অভিনব কায়দায় তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষন

ভোলার লালমোহন আলমবাজার এলাকায় মঙ্গলবার সকালে তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রীকে মূখ চেপে ধরে জোড় পূর্বক ধর্ষন করেছে একই বাড়ির বিল্লাল (৩৫) নামের এক পাষন্ড। বিবাহিত এই পাষন্ড পেশায় ইজিবাইক চালক।পরে রক্তাক্ত অবস্থায় ঐ ছাত্রীটিকে উদ্ধার করে প্রথমে লালমোহন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে স্বজনরা ।

অবস্থার অবনতি ঘটলে পরে তাকে ভোলা সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। লালমোহন থানার থানার ওসি আক্তারুজ্জামান বলেন, এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।ধষিতার মা ইয়ানুর বেগম বলেন, পাষন্ড বিল্লাল তার স্ত্রী লাইজুর সাথে মারামারি করলে সকালে লাইজু তার ২ কন্যা সন্তান নিয়ে বাপের বাড়ি চলে যায়।

এ সুযোগে খালি ঘর পেয়ে আমার শিশুমেয়েটিকে পুকুর পাড় থেকে ডেকে নিয়ে মুখ চেপে ধরে জোড় পূর্বক ধর্ষন করে। পরে শিশুটি কেঁদে কেঁদে ঘরে এসে ঘটনা খুলে বলে। কিন্তু এরই মধ্যে ঘর তালা মেরে পালিয়ে যায় বিল্লাল। ধর্ষক বিল্লাল, সম্পর্কে শিশুটির চাচাতো ভাই।

স্থানীয়রা জানিয়েছে, ঘটনার পর ধর্ষক বিল্লাল গোসল করে এবং যোহর নামাজ পড়ে নিরপরাধীর মতো ইজিবাইক নিয়ে রাস্তায় বেড়িয়ে খোশ মেজাজে ভাড়া টানার সময় এলাকাবাসী সংঘবদ্ধ হয়ে পৌর শহরের সাবঃ রেজিষ্ট্রী অফিসের সামনে হতে তাকে আটক করে। পরে স্থানীয় কালমা ইউপি ভবনে নিয়ে একটি কক্ষে তালা মেরে রাখে এলাকাবাসী।স্থানীয়রা পুলিশকেসংবাদ দিলে পুলিশ ঘটনাস্থল গিয়ে বিকাল ৪ টার দিকে তাকে গ্রেফতার করে।






মন্তব্য চালু নেই