মেইন ম্যেনু

পুলিশ ব্যবস্থা না নিলে ভূত হয়ে শাস্তি দেবো, গৃহবধূর সুইসাইড নোট

গভীর রাতে নিজের বাড়িতেই গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন গৃহবধূ সরিতা চাচন। পশ্চিবঙ্গের রাজগঞ্জের বেলাকোবা বাজারের বাসিন্দা ওই গৃহবধূর মৃতদেহের কাছ থেকে উদ্ধার হয় একটি সুইসাইড নোট।

আর তাতে তিনি লিখে গেছেন, কারা কারা তার মৃত্যুর জন্য দায়ী। তাদেরকে শাস্তি দেয়ার জন্য তিনি পুলিশকে সেই নোটে আর্জি জানিয়ে গেছেন। গৃহবধূ লিখেছেন, তিনি মরেও শান্তিতে থাকতে দেবেন না দোষীদের। পুলিশ যদি তাদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা না নেয়, কিংবা তারা যদি আইনের চোখে ধুলো দিয়ে পার পেয়ে যায়, তাহলেও তাদের মুক্তি নেই। কারণ মৃত্যুর পর তিনি ভূত হবেন। ভূত হয়েই দোষীদের শাস্তি দেবেন তিনি।

এদিকে তিনি কি করে ভূত হতে পারবেন তার নিয়মও বাতলে দিয়েছেন। যে নিয়মে শ্রাদ্ধানুষ্ঠান করলে ভূত হওয়া যায়, তার নির্দেশিকা লিখে গেছেন গৃহবধূ।

নিহতের পরিবারের অভিযোগ, সম্পত্তি জনিত কারণেই সরিতা চাচন আত্মহত্যা করেছেন। গৃহবধূর স্বামী শ্রবণ চাচনের সঙ্গে ভাই অরবিন্দ চাচনের সম্পত্তি জনিত বিবাদ লেগেই থাকতো। ভাইয়ে ভাইয়ে বিবাদের জেরে গৃহবধূর উপর নির্যাতনও চালাতো তার দেবর অরবিন্দ চাচন ও তার পরিবার। তা সহ্য করতে না পেরেই আত্মহত্যা করেন তিনি।

এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তার প্রেক্ষিতে ইতিমধ্যেই নিহতের জা ও দেবরের ছেলেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গৃহবধূ তার মৃত্যুর জন্য ছয়জনকে দায়ী করে গেছেন সুইসাইড নোটে।






মন্তব্য চালু নেই