মেইন ম্যেনু

পুলিশকে চড় মারায়

যুবলীগ-ছাত্রলীগের দুই নেতা আটক

রাজশাহীর বিনোদপুরে পুলিশ সদস্যকে লাঞ্ছিত করায় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের দুই নেতাকে আটক করেছে পুলিশ।

আটকরা হলেন, রাজশাহী মহানগরীর ৩০ নম্বর ওয়ার্ড (দক্ষিণ) যুবলীগের সভাপতি মেহেদী হাসান ইয়ামিন ও মহানগর ছাত্রলীগের পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এখলাছুর রহমান সাদ্দাম। তবে, তাদেরকে মতিহার থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।

এ ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয় যুবলীগ ও ছাত্রলীগ কর্মীরা ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করলে পুলিশের সঙ্গে তাদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

শুক্রবার দুপুরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন বিনোপুরে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার দুপুর ১টার দিকে বিনোদপুরে যুবলীগ নেতা ইয়ামীন ও এখলাছুর রহমান রাকিব নামের এক ব্যক্তিকে ধরে নিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন। তাদের মধ্যে টাকা লেনদেন নিয়ে কিছু সমস্যা ছিল।

এসময় রাকিবের সঙ্গে থাকা এক ব্যক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিনোদপুর গেটে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের বিষয়টি জানান। পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে ইয়ামীন ও এখলাছুর রহমান তাদের সঙ্গে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন।

এক পর্যায়ে ইয়ামীন আমিনুল ইসলাম নামের এক পুলিশ কনস্টেবলকে চড় মারেন। এ সময় দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা তাদের ওপর লাঠিচার্য করে ও আটক করে নগরীর মতিহার থানায় নিয়ে যায়।

এদিকে দুই নেতাকে আটকের প্রতিবাদে দুপুর দেড়টার দিকে রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে দেয় স্থানীয় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এসময় প্রায় আধাঘণ্টা সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ ছিল। দুপুর ২টার দিকে পুলিশ সড়ক অবরোধকারীদের ধাওয়া দিয়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নগরীর মতিহার থানার এসআই সেলিম রেজা বলেন, সরকারি কাজে বাঁধা দেওয়ার অভিযোগে বিনোদপুর থেকে ২ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের থানা হেফাজতে রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ ঘটনার পর নগরীর বিনোদপুর ও মির্জাপুর এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানান তিনি।






মন্তব্য চালু নেই