মেইন ম্যেনু

পৃথিবীর সবচেয়ে দামি ডিনার মিলবে এই রেস্তোরাঁতেই, জানেন কত টাকা খরচ হবে?

একটা রেস্তোরাঁয় খাওয়ার খরচ কত বেশি হতে পারে? কত বেশি খরচ আপনি কল্পনা করতে পারেন একটি ডিনারের জন্য? তাহলে জেনে রাখুন, সিঙ্গাপুরের এই রেস্তোরাঁয় খাওয়ার খরচ আপনার যাবতীয় কল্পনাকে অতিক্রম করে যাবে।

সিঙ্গাপুরের মারিনা বে অঞ্চলে অবস্থিত সে-লা-ভি নামের একটি রুফ টপ রেস্তোরাঁ একটি রাশিয়ান হীরে কোম্পানির সঙ্গে হাত মিলিয়ে চালু করতে চলেছে পৃথিবীর সবচেয়ে বিলাসবহুল ডিনার। কতো খরচ পড়বে সেই ডিনার খেতে সেই প্রসঙ্গে একটু পরে আসা যাক। আগে জেনে নিই চলুন, কী কী রয়েছে ডিনারের তালিকায়।

প্রথমেই বলে রাখা ভাল, এই ডিনার মানে নিছক খাওয়া-দাওয়া নয়, বরং আরও অনেক কিছু। ডিনারের শুরুতেই থাকছে ৪৫ মিনিটের একটি হেলিকপটার রাইড। তারপর যেখানে আপনি হেলিকপ়টার থেকে নামবেন, সেখানেই আপনার জন্য অপেক্ষা করবে শোফার চালিত একটি রোলস রয়েস।

রোলস রয়েস আপনাকে ঘুরিয়ে দেখাবে গোটা সিঙ্গাপুর শহরটা। তারপর ছেড়ে আসবে রেস্তোরাঁর দোরগোড়ায়। রেস্তোরাঁয় ঢোকার মুখে আপনাকে স্বাগত জানানো হবে ১০ হাজার গোলাপ দিয়ে। এরপর শু‌রু হবে খাওয়ার পর্ব।

মেনুতে থাকছে মোট ১৮টি পদ। বেলম অয়েস্টার, আলমা ক্যাভিয়ারের মতো বর্তমানে লুপ্তপ্রায় সব পদের সঙ্গেই পরিবেশিত হবে প্রায় ৫০ বছরের পুরনো ভিন্টেজ ওয়াইন। কিন্তু খাওয়াটাই এখানে শেষ কথা নয়। খাওয়ার বাসনকোসনেও রয়েছে বিশিষ্টতা।

খাবার মুখে তোলার জন্য যে চপস্টিকগুলো দেওয়া হবে সেগুলিতে বসানো থাকবে হীরে। চপস্টিকে খোদাই করে লেখা থাকবে যিনি খাচ্ছেন তাঁর নাম। এমনকী খাওয়ার শেষ পাতেও কোনও মিষ্টিমুখ নয়, থাকছে অভিনব বন্দোবস্ত।

যাঁরা খাচ্ছেন ডিনারের শেষ পর্বে তাঁদের দেওয়া হবে প্ল্যাটিনামের রিং-এর ওপর ২.০৮ ক্যারেট ওজনের নীল রং-এর হীরে বসানো একটি আঙটি।

এবার আসা যাক খরচের প্রসঙ্গে। এই গোটা ডিনার পর্বের খরচ পড়বে ২ মিলিয়ন ডলার। টাকার হিসেবে প্রায় ১৪ কোটি টাকার মতো। কী ভাবছেন, এত টাকা খরচ করে কে আর যাবে এক রাত্রের ডিনার খেতে?

রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষ কিন্তু মনে করছে, এত লোক এই ডিনার খেতে আগ্রহী হবেন যে দু’হাতে ভীড় ঠেলা যাবে না। সেই কারণে টাকা ফেললেই সে-লা-ভি তে ডিনারের সুযোগ মিলবে না। আগ্রহীদের আবেদনপত্রের ভিত্তিতে করা হবে একটি লটারি। যাঁরা জিতবেন, কেবল তাঁরাই খেতে পারবেন এই ১৪ কোটি টাকার ডিনার। তাহলে বোঝাই যাচ্ছে, পৃথিবীতে আর যা কিছুরই অভাব থাক, বড়লোকের অন্তত অভাব নেই।-এবেলা






মন্তব্য চালু নেই