মেইন ম্যেনু

পোরশার বাজারে পাকা আমের হিড়িক : দাম ভালো থাকায় চাষিরা খুশি

সালাউদ্দীন আহম্মেদ, পোরশা (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর পোরশায় ছোট বড় হাট বাজার ও আড়ৎ গুলোতে পড়েছে পাকা আম বেচা কেনার হিড়িক। প্রতিদিন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা তাদের নিজস্ব গাছ কিংবা ক্রয় করা বাগান থেকে পেড়ে নিয়ে আসছেন গাছ পাকা আম। এতে বিক্রেতার পাশাপাশি ক্রেতারাও ভীড় জমিয়েছে হাট বাজার গুলোতে। গাছ পাকা আম সবার পছন্দের তাই অনেক ক্রেতা তাদের প্রিয় মানুষের জন্য দেশের বিভিন্ন স্থানে আম পাঠাচ্ছেন।

এদিকে আম ক্রেতা বিক্রেতার পাশাপাশি খুশি আম চাষীরাও। তারা বলছেন,- বিগত বছরের তুলনায় এবার আমের দাম বেশ ভালো। এভাবে শেষ পর্যন্ত আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে এলাকার ছোট বড় সব বাগান মালিকরা লাভবান হবেন। উপজেলার পোরশা মিনা বাজার, গাঙ্গুরীয়া বাজার, সরাইগাছী মোড়, শিশা বাজার, নিতপুর বাজার এবং চকবিষ্ণপুর কলনী বাজারে গিয়ে দেখা গেছে প্রচুর পরিমানে আম ব্যবসায়ীরা ক্রয় বিক্রয় করছেন। অনেকে ব্যস্ত রয়েছেন খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে সুলভ মূলে আম কিনে ঢাকা, বরিশাল, সিলেট, চট্রগ্রাম সহ বাজার দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানোর কাজে। সেখানে তারা বিভিন্ন দামে আম বিক্রি করলেও পোরশার বাজার গুলোতে ল্যাংড়া ১৮শ টাকা মন, খিরসাপাতি-১৭শ, মহন ভোগ ১৮, গোপাল ভোগ ১৯শ, সুরমা ফজলি ১৮শ, নাগ ফজলি-১৮শ টাকা প্রতি মন হারে বেচা কেনা চলছে।

উপজেলার চকবিষ্ণপুর বাজারের আমের আড়ৎ মালিক শরিফুল ইসলাম জানান,- গত বছর খুচরা ব্যবসায়ীদের নিকট থেকে আম ক্রয় করে অনেক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি। যে দামে আম ক্রয় করে ঢাকা পাঠিয়েছিলাম, কোন কোন সময় তার চেয়ে কম দাম পেয়েছি। এবার আমের বাজারের অবস্থা এখন পযন্ত ভালো। শেষ পযন্ত এরকম চলতে থাকলে সব ব্যবসায়ীরাই গত বছরের ক্ষতি পোষিয়ে নিতে পারবে।

এদিকে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন অফিস সূত্রে জানা গেছে- এবার পোরশা উপজেলায় প্রায় ৬হাজার হেক্টর আবাদী জমিতে আম চাষ করেছেন চাষীরা। এ বছর আম উৎপাদনের লক্ষা মাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে প্রতি হেক্টরে ১০টন করে। সে হিসেবে এ মৌসুমে অত্র উপজেলায় প্রায় ৬০ হাজার টন আম উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে। চাষীরা আম গাছ থেকে পাড়তে শুরু করেছে এবং দেশের বিভিন্ন স্থানে তারা বিশ মুক্ত আম বাজারজাত করছেন।






মন্তব্য চালু নেই