মেইন ম্যেনু

প্যারিস থেকে মাদার অব ডেমোক্রেসি’র প্রতি আহবান

জ্ঞান-বুদ্ধি হওয়ার পর থেকে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে বিএনপির সঙ্গে যুক্ত হয়েছি। কিভাবে দেশ ও দেশের মানুষকে ভালোবাসতে হয়, কিভাবে দেশের কল্যাণে কাজ করতে হয়, গরিব-দুঃখি অসহায় মানুষের কাছে গিয়ে কিভাবে তাদের দুঃখ দুর্দশা লাঘব করতে হয় তা আমার মহান নেতা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের কাছ থেকে শিখেছি। জুলুম-নির্যাতন সয়ে দেশে গণতন্ত্র ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠাতার সংগ্রামে অংশ নেয়ার শিক্ষা পেয়েছি তারুণ্যের অহংকার, বাংলাদেশের আগামী দিনের প্রধানমন্ত্রী তারেক রহমানের কাছ থেকে। আবার অন্যায়, অসত্য ও জুলুম-নির্যাতনের কাছে মাথানত না করা, কঠিন বিপদে ধৈর্য ধারণ করে সাহস নিয়ে সামনে এগিয়ে চলা, দেশের স্বার্থে, গণতন্ত্রের স্বার্থে শত্রুর সঙ্গে আপস না করে লড়াই চালিয়ে যাওয়া ও সর্বোপরি সর্বোচ্চ ত্যাগস্বীকারের শিক্ষা পেয়েছি তিন-তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, আপসহীন নেত্রী, মাদার অব ডেমোক্রেসি-বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া আপনার কাছে।

ছাত্র রাজনীতি করার সময় আওয়ামী সন্ত্রাসীদের নানা অত্যাচার-নির্যাতন সোহ্য করেছি, মামলা হামলার শিকার হয়ে দেশ ছেড়েছি। পিতা-মাতা, আত্মীয় পরিজন ছেড়ে অবস্থান করি মানবতা ও মানবাধিকারের স্রেষ্ঠ দেশ ফ্রান্সে। নিজের ব্যবসার পাশাপশি এখানকার ত্যাগী নের্তৃবৃন্দের সহায়তায় ফ্রান্স বিনপিকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়েছে। যেখানে দল, মানুষ ও দেশের জন্য কল্যাণকর বিষয় সামনে এসেছে সব ফেলে ফ্রান্স বিএনপি সেখানে ছুটে গেছে। সব ধরণের সমস্যা মোকাবালা করে সঙ্ঘবদ্ধভাবে তারেক রহমানের অনুপ্রেরণায় প্রাণের সংগঠন ইউরোপ বিএনপিকে শক্তিশালী সংগঠনে পরিণত করা হয়েছে।

এক এগারর অবৈধ মইনউদ্দিন-ফখরুদ্দিন সরকার ও পরবর্তী আওয়ামী সরকারের সব জুলুম নির্যাত, অন্যায় অনাচার ও জোর করে ক্ষমতায় থাকার প্রতিবাদে ইউরোপসহ সারা বিশ্বে কঠোর কর্মসূচি ও তীব্র আন্দোল গড়েতোলার ব্যাপারে অগ্রণী ভূমিকা পলন করে ফ্রান্স বিএনপি। বিশ্ব নেতাদের কাছে সামরিক শাসকদের দুর্শাষণ ও পরবর্তী আওয়ামী দখলবাজ সরকারের সীমাহীন বর্বর নির্যাতনের প্রকৃত চিত্র তুলে ধরা ও তারুণ্যের অহংকার তারেক রহমানের ওপর নির্যাতনের প্রতিবাদে সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে ইউরোপ তথা বিশ্বজুড়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হয়। স্বাধীনতা যুদ্ধে যেমন প্রবাসিরা গুরত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করেছে দেশের যেকোনো দুর্যোগময় মুহুর্তে এখনো অগ্রণী ভুমিকা পালন করছে প্রবাসি বিএনপি নের্তৃবৃন্দ। কেন্দ্রীয় নেতাদের যখন মাঠে দেখা যায় না, তখন যেকোনো আন্দোলনে বিশ্বকে উত্তাল রাখার দায়িত্ব পালন করছে প্রবাস বিএনপি। আওয়ামী জালিম সরকারের বিরুদ্ধ শক্ত অবস্থানের কারণে শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগের বহু নেতা এখনো বিদেশ সফরে ভয় পায়। একাজ করতে গিয়ে অনেককে বিদেশেও কাঠগড়ায় পর্যন্ত দাঁড়াতে হয়েছে। দেশে গেলে হামলা মামলা ও হত্যা করা হবে এ আশঙ্কায় বহু নেতা বছরের পর বছর নিজ দেশে পা রাখতে পারেনি। প্রবাস বিএনপির বহু নেতার দেশে থাকা আত্মীয় স্বজনকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা হয়েছে। বাড়িঘর ভেঙে, আগুণ দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। ধন সম্পদ নষ্ট করা হয়েছে। জায়গাজমি, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান দখল করা হয়েছে। ক্রস ফায়ারের নামে অনেককে নির্বিচারে হত্যা করা হয়েছে।পঙ্গু করা হয়েছে অনেককে।

এরপরও নিজেদের গুরত্বপূর্ণ কাজ ফেলে, প্রচুর অর্থ খরচ করে দেশ ও দলের প্রয়োজনে তারা কাজ করছে। কোনদিন কিছু পাওয়ার আশা না করে দল, দেশ, শহীদ রাষ্ট্রপতি, বেগম জিয়া ও দেশের পরবর্তী রাষ্ট্রনায়ক তারেক রহমানকে ভালোবেসে নিরালস পরিশ্রম করে যাচ্ছে। এ কাজে এগিয়ে আছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, সুইডেন, ডেনমার্ক, স্পেন, বেলজিয়াম, ইটালী, ফিনল্যাণ্ড, জার্মান, নরওয়ে, হল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড, পর্তুগাল, অস্ট্রিয়া, সোউদি আরব, মালয়েশিয়া, আরব আমিরাত, দুবাই, কানাডা, অস্ট্রেলিয়াসহ অন্যান্য দেশের নের্তৃবৃন্দ।
আমাদের কর্মকাণ্ড দেখে প্রবাসে বেড়াতে আসা কেন্দ্রীয় নের্তৃবৃন্দ সবসময় খুশি হয়ে ব্যাপক প্রশংসা করেছে। কিন্তু বাস্তবে প্রবাসি নেতারা সবকিছু থেকে বঞ্চিত। আজ পর্যন্ত দলের কোনো সম্মানজনক পদ কোনো প্রবাসি নেতাকে প্রদান করা হয়নি। বিগত ৫টি কাউন্সিলে এসব নেতারা ছিল সম্পূর্ণ উপেক্ষিত।

২০০৯ সালের ৮ ডিসেম্বর দলের সর্বশেষ ৫ম জাতীয় কাউন্সিল হওয়ার দীর্ঘ ৭ বছর পর আবার এসেছে সেই মহেন্দ্রক্ষণ। ১৯ মার্চ হতে যাচ্ছে পরবর্তী কাউন্সিল। দলের সর্বক্ষেত্রে চলছে উৎসবের আমেজ। দলের দুর্দিনে যেসব নেতাদের খুঁজে পাওয়া যায়নি পদ পাওয়ার আশায় গুলশান ও কেন্দ্রীয় কর্যালয়সহ বড়-বড় নেতাদের বাসায় তাদের দৌড়ঝাপ চোঁখে পড়ার মতো। এতে তারা হয়তো সফলও হবে। কিন্তু বরাবরের মতো এবারও প্রবাসীদের খোঁজ পর্যন্ত নেয়া হবে না। দলের জাতীয় উৎসবে শামিল হওয়ার সুযোগও হবে না অনেকের। কারণ বহু লোকের ভিড়ে কাউন্সিলে অংশ নেওয়ার আমন্ত্রণ পত্রটিও আমাদের পর্যন্ত পৌঁছেনি। নিজে কিছু পাবো এ আশায় নয়, দলের স্বার্থে প্রবাসি নেতাদের অন্তত ৫ শতাংশ কেন্দ্রীয় পদ প্রদানের জোর দাবি আপোষহীন নেত্রী, মাদার অব ডেমোক্রেসি দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি। এতে একদিকে যেমন নেতাদের মূল্যায়ন করা হবে, অন্যদিকে মেধার সমন্বয় হবে। কেন্দ্রীয় পদ নিয়ে দেশের স্বার্থসংশ্লিষ্ঠ বিষয়ে বিশ্ব নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করাও সহজ হবে।

বাস্তবে আমাদের দেশের কাছে কিছুই চাওয়ার নেই। হাড়ভাঙা খাটুনির পর আমাদের উপার্জিত অর্থ দেশের অর্থনীতিকে শক্তিশালি করছে। দেশ সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। শধু আমরা অবহেলিত থাকছি। ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছি। দেশে গেলে বিমানবন্দরে আমাদের সঙ্গে মরাত্মক দুর্ব্যবহার করা হয়। বিদেশে যেমন আমরা প্রবাসি, দেশেও প্রবাসি। এমনকি মৃত্যুর পর আমাদের লাশটা পর্যন্ত দেশে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয় না। এসব ভাবতেই কেমন অবাক লাগে। আমরা এমনটা চাই না।

বিভিন্ন সুত্র থেকে পাওয়া তথ্য মতে এবারে বিএনপির জাতীয় কাউন্সিলে পদ সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। প্রয়োজনে আরো কিছু নতুন পদ সৃষ্টির মাধ্যমে প্রবাসিদের কেন্দ্রীয় কমিটিতে পদ পাওয়ার সুযোগ দিতে মহান নেত্রী, তিন বারের প্রধানমন্ত্রী ও মাদার অব ডেমোক্রেসির প্রতি বিশ্বের সব প্রবাসি নেতাদের পক্ষ থেকে আমার আহবান। বিএনপির ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিল সম্পূর্ণ সফল হোক, নতুন নেতৃত্ব দেশের গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে ঘুরে দাঁড়াক, দেশের সূর্যসন্তান তারেক রহমান বীরের বেশে-দেশে প্রত্যাবর্তণ করুক দূর প্রবাস থেকে আমাদের এটাই প্রত্যাশা। যতো ঝড়ই আসুক নেত্রীর স্নেহে বিএনপির ছায়াতলে প্রবাস বিএনপির নের্তৃবৃন্দ ছিলাম, আছি থাকবো, এটা আমাদের প্রতিজ্ঞা।

লেখকঃ

এম এ তাহের
সাধারণ সম্পাদক,
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)
ফ্রান্স শাখা






মন্তব্য চালু নেই