মেইন ম্যেনু

প্যারিস হামলার বদলা নিতে শরণার্থী শিবিরে আগুন

প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলার মাত্র কয়েক ঘণ্টা পরেই দেশটির উত্তরাঞ্চলের এক মুসলিম শরণার্থী শিবিরে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। তবে এ ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

শুক্রবার গভীর রাতে ফ্রান্সের উত্তরাঞ্চলীয় বন্দর নগরী ক্যালাইসে অবস্থিত ওই শরণার্থী শিবিরে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। আগুনে কমপক্ষে ৪০টি স্থাপনা ধ্বংস হয়েছে বলে ব্রিটিশ পত্রিকা ডেইলি মিররকে জানিয়েছে। ওই শিবিরে প্রায় ৬ হাজার শরণার্থীর বাস যাদের অধিকাংশই সিরিয়া ও লিবিয়ার বাসিন্দা।

তাৎক্ষণিকভাবে ওই অগ্নিকাণ্ডের কারণ জানা যায়নি। তবে প্যারিস হামলার কয়েক ঘণ্টা পর ওই শিবিরে অগ্নিসংযোগের ঘটনাকে প্রতিশোধমূলক কর্মকাণ্ড হিসেবেই দেখা হচ্ছে।

ফ্রান্সের অভিবাসন বিরোধী গোষ্ঠী ‘দা অ্যাংরি অব ক্যালাইস’ বরাবরই ওই শরণার্থী শিবিরের বিরুদ্ধে নানা তৎপরতা চালিয়ে থাকে। ফরাসি সামাজিক মাধ্যমগুলোতে ব্যঙ্গ করে ওই শিবিরটিকে ‘জঙ্গল’ বলে উল্লেখ করা হয়ে থাকে। গত সপ্তাহে শরণার্থী বিরোধী বিক্ষোভকারীদের মিছিলে কুরআন পোড়ানোকে কেন্দ্র করে ওই এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছিল। এরপর প্যারিস হামলার ঘটনা আগুনে ঘৃত ঢালার কাজ করেছে।

ওই শরণার্থী শিবিরে কারা আগুন দিয়েছে তাৎক্ষণিকভাবে তা জানা যায়নি। তবে ক্যালাইসের মেয়র নাতাচা বোউচার্ট এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় শরণার্থীদের দিকেই আগুন তুলেছেন। এক বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, ‘অপেক্ষাকৃত উন্নত জীবনযাত্রার জন্য এসব শরণার্থীরা ইংল্যান্ড যেতে আগ্রহী। এজন্যই তারা আগুন দিয়েছে।’

ফ্রান্সে আশ্রয় নেয়া এসব শরনার্থীরা বরাবরই যুক্তরাজ্য যেতে ইচ্ছুক। কেননা ফ্রান্স সরকার শরণার্থীদের কোনো পরিচয়পত্র দেয়নি। এর ফলে তারা সেখানে কাজ করার কোনো সুযোগ পাচ্ছে না।






মন্তব্য চালু নেই