মেইন ম্যেনু

প্রতিদিন যে দেয়াল ধরে কয়েকশ’ মানুষ কাঁদে!

অবাক হওয়ার কিছু নেই। রোজ কয়েকশো মানুষ আসে দেয়ালটি ধরে কাঁদতে। ইতিহাস বলে প্রায় চার হাজার ফুট দেয়ালের এখন মাত্র ১৬০০ ফুট দাঁড়িয়ে রয়েছে। বাকিটা এখন আর নেই। ইংরেজিতে বলে ওয়েলিং ওয়াল, হিব্রুতে স্রেফ কোটেল বা দেওয়াল, তা ছোঁয়ার জন্য লম্বা লাইনে ধৈর্য ধরে দাঁড়িয়ে থাকেন রোজ কয়েকশো মানুষ।

এখন জানা যাক কেন মানুষ কাঁদতে আসে। মুসলিমদের বিশ্বাস, যে জায়গাটায় ছিল ইহুদিদের মন্দির, সেখান থেকেই ‘বুরক’ নামের এক ডানাওয়ালা অতিজাগতিক জীবের পিঠে চেপে স্বর্গে গিয়েছিলেন পয়গম্বর মহম্মদ। জেরুজালেমের বিলাপ দেওয়ালকে তাঁরা বলেন ‘বুরক’ দেওয়াল। তাঁদের কাছে মক্কা আর মদিনার পরেই তৃতীয় পবিত্রতম তীর্থ এই আকসা মসজিদ।

অবশ্য ওইখানেই যিশুর ক্রুশ ছিল কিনা, এটা নিয়ে এথনও বিতর্ক আছে। কিন্তু দেওয়ালের ওই টুকরোটা তখনও ওই ভাবেই ছিল, তাতে সন্দেহ নেই।

কান্নার ঐ দেয়ালে এসব ধর্মের মানুষ জামার ভাঁজ, কী ব্যাগের পকেট থেকে এক টুকরো কাগজ বার করে গুঁজে দেয় পাথরের খাঁজে। কী অসম্ভব অ্যাঙ্গেলে, কত যে উচ্চতায় দেখা যায় ইচ্ছে-লেখা কাগজ! ‘‘দেওয়ালেরও কান আছে,’’ কথাটা নাকি জেরুজালেমের এই দেওয়াল থেকেই এসেছে।

সূত্র:এমটিনিউজ২৪



« (পূর্বের সংবাদ)
(পরের সংবাদ) »



মন্তব্য চালু নেই