মেইন ম্যেনু

প্রথমবারের মতো শুরু হচ্ছে মৌ মেলা

মধু চাষিদের উদ্বুদ্ধকরণ, উৎপাদন বৃদ্ধি ও মধু রপ্তানির উদ্দেশ্য নিয়ে প্রথমবারের মতো দেশে শুরু হতে যাচ্ছে ‘মৌ মেলা-২০১৬’।

আগামীকাল ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ১ মার্চ পর্যন্ত খামারবাড়ি কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (কেআইবি) মিলনায়তন চত্বরে তিন দিনব্যাপী এ মৌ মেলা অনুষ্ঠিত হবে। মেলার আয়োজনে রয়েছে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর (ডিএই)।

শনিবার রাজধানীর খামারবাড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে তিন দিনব্যাপী ‘মৌ মেলা-২০১৬’ প্রসঙ্গে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে কৃষি মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব আনোয়ার ফারুক এসব কথা জানান।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘প্রাকৃতিক খাদ্যের মধ্যে সবচেয়ে বিশুদ্ধ খাদ্য হিসেবে পরিচিত মধু। মধু চাষিদের উদ্বুদ্ধকরণ, যেসব ফসল ও ফলে মধু চাষের সম্ভাবনা আছে সেসব ফসল ও ফলের চাষ বাড়ানো, মধু চাষি ও বাজারজাতকারীর মধ্যে সমন্বয়, প্রচলিত মৌ চাষের গণ্ডি বাড়ানো, শস্যের সঙ্গে মধু চাষ যুক্ত করাসহ নানা লক্ষ্যে এ মেলার আয়োজন করা হয়েছে।’

আনোয়ার ফারুক আরো বলেন, ‘আমরা প্রচুর পরিমাণে মধু বাইরে থেকে আমদানি করে থাকি। আমাদের একটা সমস্যা- আমরা মনে করি বাইরের জিনিস বেশি ভালো। এ কারণে বেশি দাম দিয়ে হলেও বাইরের জিনিস কিনে থাকি। কিন্তু আমাদের দেশেই যে ভালো জিনিস উৎপাদন হয় সেটা আমরা ভাবি না। মানুষ একটু সচেতন হলে দেশের লাভ হয়।’

এ সময় তিনি ভারতে ডাবর মধুর উদাহারণ দিয়ে বলেন, ‘ভারতের ডাবর কোম্পানির যে মধু আমরা কিনি তা বাংলাদেশ থেকে তৈরি মধু। আমরা প্রতি বছর ৫৫০ টন মধু ভারতে রপ্তানি করি। এখানে মধু প্রসেস করতে পারলে আমাদের ভারতের প্রসেসিং করা মধু কিনতে হবে না।’

তিনি জানান, ‘দেশে যে পরিমাণ সরিষা চাষ হয় তার তুলনায় আমরা মাত্র ২০ শতাংশ মধু আহরণ করতে পারি। ৮০ শতাংশ মধু আহরণ করা হয় না। এ কারণে ক্ষুদ্র চাষি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মধু আহরণ ও চাষের প্রশিক্ষণ দিতে হবে। তাহলে আমরা মধু রপ্তানি করতে পারবো। একই সঙ্গে মধু উৎপাদন বৃদ্ধির সাথে সাথে চিনি আমদানিও কমে যাবে।’

আজকাল মধু হট বিউটি টিপস হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। এর ফলে মানুষের শরীর ফিগার ভালো থাকবে।এ কারণে মধুর ব্যবহার বেড়ে গেছে।আমাদের মধু দিয়ে বিউটি টিপস ব্যবসাকে এগিয়ে নিতে হবে বলেও জানান তিনি।

এদিকে রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বিকেল ৩টায় শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু ‘মৌ মেলা-২০১৬’ এর উদ্বোধন করবেন। মেলায় সরকারি -বেসকারি ৩৬টি স্টল থাকবে। এছাড়া মেলায় লক্ষাধিক মৌ চাষি অংশ নেবেন। আগত দর্শনার্থীরা বিনামূল্যে মেলায় প্রবেশ করতে পারবেন।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোশারফ হোসেন, ডিএই’র মহাপরিচালক ও কৃষিবিদ মো. হামিদুর রহমান প্রমুখ।






মন্তব্য চালু নেই