মেইন ম্যেনু

প্রথম পারিশ্রমিক পেয়েছিলাম ১২ হাজার টাকা

টিভি পর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা এফএস নাঈম। নানা মাত্রিক চরিত্রে নাটকের দর্শকদের কাছে তার উপস্থিতি বরাবরই বাড়তি আগ্রহের বিষয়। বর্তমানে নাঈম অভিনীত বেশ কিছু ধারাবাহিক নাটক বিভিন্ন চ্যানেলে প্রচারে আছে। এছাড়া খণ্ড নাটক কিংবা টেলিফিল্মেও নিয়মিত অভিনয় করছেন এই অভিনেতা।

সম্প্রতি এক আড্ডায় এই তারকা জানালেন তার জীবনের ‘প্রথম’ অনেক কিছুর খবরাখবর। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক-

প্রথম স্কুল
আমার প্রথম স্কুল মতিঝিল গভঃ স্কুল। সেখান থেকেই আমার শিক্ষা জীবনের হাতেখড়ি। আমি তখন বেশ ছোট ছিলাম। মনে পড়ে ক’জন বন্ধুরা মিলে হেঁটে স্কুলে যেতাম, আবার হেঁটে বাসায় ফিরতাম।

বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম
আমি এআইইউবি (আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটি অব বাংলাদেশ) থেকে ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতন ও নর্থসাউথ থেকে স্নাতকোত্তর শেষ করেছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম দিনের স্মৃতি খুব ভালো মনে নেই। কারণ এটা তো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মত না, তাই আড্ডা কিংবা খুব বেশি হইহুল্লোড় করার সুযোগ পাইনি। আর প্রথম দিনে আমার ক্লাসমেটরা কেউ পরিচিত ছিল না। তাই দিনটা খুব বেশি আমার জন্য সুখকর ছিল না।

প্রথম উপন্যাস
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘শেষের কবিতা’ উপন্যাসটি আমার প্রথম পড়া উপন্যাস। এরপর ইংরেজি সাহিত্য নিয়ে পড়ালেখা করায় হেনরি ফিল্ডিং, গ্যাব্রিয়াল গর্জিসা মারকুয়েস, সালমান রুশদি ছাড়াও আরো অনেক বিখ্যাত লেখকদের উপন্যাস পড়েছি।

প্রথম প্রেম
১৯৯৮ সালের প্রথম করেছি। আপাতত এই প্রসঙ্গে আর কিছুই বলতে চাচ্ছি না।

প্রথম ব্যর্থতা
আমার খুব ইচ্ছে ছিল ব্রিটিশ স্কুলে পড়ার। কিন্তু সেটা হয়নি। আমার দাদা ছিলেন এমএলএ অ্যাডভোকেট আবদুস সোবহান। উনি বেঁচে থাকলে আমার এই ইচ্ছেটা পূরণ হতো। আমার জন্মের পর তাকে পাইনি। আমি মনে করি এখনও পর্যন্ত এটাই আমার জীবনের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা কিংবা আপসোস।

প্রথম নাটক
২০০৭ সালে আমি প্রথমে নাটকে কাজ করি। এটি ছিল রুমানা রশীদ ঈশিতা পরিচালিত ‘এক নিঝুম অরণ্যে’ নামের একটি নাটক। আমার সহশিল্পী ছিলেন লাক্সতারকা সোমা ও শানু। এর শুটিং হয়েছিল ধামরাইয়ে।

প্রথম পারিশ্রমিক
‘এক নিঝুম অরণ্যে’ কাজ করে প্রথম পারিশ্রমিক পেয়েছিলাম ১২ হাজার টাকা। ওই পারিশ্রমিক হাতে পাওয়ার আনন্দ বা অনুভূতির কথা জীবনেও ভুলতে পারবো না। কারণ অভিনেতা হিসেবে নিজের প্রথম রোজগার বলে কথা!

প্রথম বিজ্ঞাপন
তানভীর ভাইয়ের নির্দেশনায় ‘মুরগী মার্কা ঢেউ টিন’-এর বিজ্ঞাপনে প্রথম কাজ করি। আমার সহশিল্পী ছিলেন মিশা সওদাগর। বিজ্ঞাপনে ‘নতুন দিনের নতুন সিদ্ধান্ত‘ সংলাপটি বেশ জনপ্রিয়তা পায়।

প্রথম চলচ্চিত্র
২০১০ সালে খিজির হায়াত খানের পরিচালনায় ‘জাগো’ ছবিতে প্রথম কাজ করি। বাংলাদেশের প্রথম স্পোর্টস-ফিল্ম। মজার ব্যাপার হচ্ছে, আরেফিন শুভও এই ছবির মাধ্যমে বড়পর্দায় প্রথম কাজ করে।

দেশের বাইরে প্রথম
দেশের বাইরে প্রথম শুটিংয়ে গিয়েছিলাম। সেটা ২০০৮ সাল নাদাগ, থাইল্যান্ডে। নাটকের নামটা আমার মনে নেই, কিন্তু নির্মাতা ছিলেন সকাল আহমেদ।






মন্তব্য চালু নেই