মেইন ম্যেনু

প্রধানমন্ত্রীকে হুমকি: ঢাকায় ‘ছায়া মেয়রের’ বিরুদ্ধে আরেক মামলা

ফেইসবুকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকি দেয়ার অভিযোগে বিএনপির বহিষ্কৃত নেতা তানভীর আহমেদ সিদ্দিকীর ছেলে ইরাদ আহমেদ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে মামলা করেছেন আওয়ামী লীগের এক নেতা।

বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের হাকিম শারাফুজ্জামান আনসারীর আদালতে এই মামলা করেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী আওয়ামী লীগ ইসমাইল মো. গোলাম রসুল।

এর আগে একই অভিযোগে ইরাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে তার নিজ এলাকা গাজীপুরের কালিয়াকৈরে। এই মামলার তদন্ত চলছে বলে জানিয়ে পুলিশ বলছে, ইরাদকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। তবে তার অবস্থান এখন কোথায়, সে বিষয়ে নিশ্চিত নয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

ইরাদ আহমেদ সিদ্দিকীর বাবা তানভীর আহমেদ সিদ্দিকী বিএনপির প্রতিষ্ঠাকালীন নেতা। তবে খালেদা জিয়াকে নিয়ে ইরাদের তোলা গুরুতর অভিযোগের পর ২০০৯ সালের ১৭ মার্চ বিএনপি থেকে বহিষ্কার করা হয় তানভীরকে। এরপর থেকে দুইজন কার্যত রাজনীতি থেকে দূরে সরে যান।

২০০৯ সালে একবার ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তোড়জোড় শুরু হলে ইরাদ বিএনপির সমর্থনে ভোটে দাঁড়াতে চেয়েছিলেন। ওই বছরের মার্চের দ্বিতীয় সপ্তাহে রাজধানীতে সংবাদ সম্মেলন করে ইরাদ নিজেকে ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র প্রার্থী হিসেবে ঘোষণাও দেন। এ সময় তিনি জানান, মেয়র পদে সমর্থনের জন্য বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া তার কাছে পাঁচ কোটি টাকা চেয়েছিলেন।

এখনও ফেইসবুক পেজে ইরাদ নিজেকে ঢাকায় ছায়া মেয়র বলে পরিচিতি দেন। তিনি বাংলাদেশে আছেন কি না সে তথ্য নিশ্চিত করে বলতে পারছে না পুলিশ।

ইরাদের বিরুদ্ধে মামলায় বলা হয়, গত ২৫ সেপ্টেম্বর রাত ১০টার পরে ইরাদ আহমেদ সিদ্দিকী তার নিজের ফেইসবুক স্ট্যাটাসে লিখেন, ‘শেখ হাসিনাকে হত্যা ছাড়া বাংলাদেশের ক্ষমতার ভারসাম্য ও গণতন্ত্র ফেরানো সম্ভব নয়।’ বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানকে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র বানিয়েও ফেসবুকে পোস্ট করেন ইরাদ আহমেদ সিদ্দিকী।






মন্তব্য চালু নেই