মেইন ম্যেনু

নারায়ণগঞ্জের শিক্ষককে অপদস্থ

প্রধান শিক্ষক স্বপদে বহাল : স্কুল কমিটি বাতিল

নারায়ণগঞ্জের বন্দরের পিয়ার সাত্তার স্কুলের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তিকে স্বপদে বহালসহ স্কুল কমিটিকে বাতিল ঘোষণা করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। বৃহস্পতিবার রাজধানীর সেগুবাগিচাস্থ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার পিয়ার সাত্তার লতিফ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তের বিরুদ্ধে ইসলাম ধর্ম সম্পর্কে কটূক্তি করার যে অভিযোগ উঠেছে তার সত্যতা খুঁজে পায়নি মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) তদন্ত কমিটি। একই সঙ্গে ওই শিক্ষককে বরখাস্তের সিদ্ধান্তকে আইন বহির্ভূত আখ্যায়িত করে স্বপদে বহাল রাখার সুপারিশও করেছে তদন্ত কমিটি।

তিনি বলেন, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার মতো কিছু আমরা পাইনি। ভিন্ন একটি বিষয়কে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটানো হয়েছিল।

শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেন, শিক্ষকের মর্যাদাহানি মানে পুরো জাতির মর্যাদাহানি। আমরা শিক্ষককের অমর্যাদা কোনোভাবেই বরদাস্ত করবো না। শিক্ষকের সম্মান নিশ্চিত করতে হবে। কারণ শিক্ষরাই জাতি গড়ার কারিগর। কোনো সভ্য সমাজে এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে না। এ ধরনের নিদর্শন পৃথিবীর কোথাও পাওয়া যাবে না। এ ঘটনায় আমরা তীব্র নিন্দা, ক্ষোভ, ঘৃণা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

তিনি বলেন, আমাদের তদন্ত কমিটি রাত-দিন খেটে প্রতিবেদন নিয়ে এসেছেন। গতকাল (বুধবার) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছেন। প্রতিবেদনের প্রাথমিক পর্যালোচনার ভিত্তিতে আমরা এ সিদ্ধান্তগুলো নিয়েছি। সার্বিক সিদ্ধান্ত গ্রহণে একটু সময় লাগবে। পর্যালোচনা করে বিস্তারিত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এর সঙ্গে জড়িত দলীয় বিষয়গুলো দলের কর্মকর্তারা নিশ্চিত করবেন।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার পিয়ার সাত্তার লতিফ উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে শাসন করার সময় ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগ উঠে ওই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। পরে শিক্ষককে মারধর এবং কান ধরে উঠ বস করানোর ঘটনায় সারাদেশে প্রতিবাদের ঝড় উঠে। বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে ঘটনা তদন্তে নামে মাউশি। তদন্ত শেষ করে শিক্ষামন্ত্রী বরাবর প্রতিবেদন জমা দেয় তদন্ত কমিটি।






মন্তব্য চালু নেই