মেইন ম্যেনু

প্রাকৃতিক উপায়ে মাথাব্যথা দূর

মাথা থাকলেই মাথাব্যথা সহ্য করতে হবে- তা নয়। সমস্যা হলে তার সমাধান খুঁজে বের করতে হবে। সঠিক ভাবে ব্যবস্থা নিলে সুস্থ সুন্দর থাকা সম্ভব। অনেকেরই ব্যথা প্রতিশেধক খাওয়ার পুরোনো অভ্যাস এখন আর কাঙ্ক্ষিত ফল দিচ্ছে না। তাছাড়া অতিরিক্ত ওষুধ সেবন শরীরের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। তাই কোনো রকম ক্ষতির আশঙ্কা ছাড়াই চমকপ্রদ কিছু প্রাকৃতিক উপায়ে দূর করতে পারেন মাথাব্যথা।

জল চিকিৎসা

এতে শুধু মাথাব্যথা নয়, শরীরের অন্যান্য ব্যথাও উপশমে কাজ করে। প্রথমে যতটা সহ্য করা যায় ততটা গরম পানির বালতিতে ২ মিনিট পা ডুবিয়ে রাখুন। এবার অনেক বেশি ঠাণ্ডা পানিতে পা ডোবাতে হবে ২ মিনিট ধরে। তারপর আবার গরম পানিতে পা ডুবান। এতে করে ত্বকে রক্ত সরবরাহের গতি বাড়বে। শরীরের দরকারি জায়গায় দ্রুত পুষ্টিকর উপাদান পৌঁছাবে, অন্যদিকে দূর হবে দেহের দূষিত পদার্থ। এভাবে চলবে বিশ মিনিট।

চোখের বিশ্রাম

যাদের সারাক্ষণ কম্পিউটার মনিটরে চোখ রাখতে হয়, তাদের মাথা ব্যথা অতি পরিচিত সমস্যা। তবে দুয়েক মিনিট পর পর এদিক ওদিক তাকালে কিংবা মাঝে মাঝেই মুখে ঠাণ্ডা পানির ঝাপটা দিলে চোখের বিরাম আসে। এতে কাজেরও খুব একটা ক্ষতি হয় না। এছাড়া মাথা ব্যথার সময়ে নিস্তব্ধ অন্ধকার ঘরে বিশ্রাম নিতে পারেন। তাতে দ্রুত ব্যথা সেরে যাবে।

ঠাণ্ডা-গরম থেরাপি

সরাসরি বরফ লাগাবেন না, আইসব্যাগে ভরে মাথাকে বরফ শীতল করা যেতে পারে। পাশাপাশি ঘাড়ে দিতে হবে গরম পানির ভাপ। আদা চা এক চা চামচ আদাবাটা দিয়ে চা বানিয়ে খেয়ে নিন গরম গরম। মাথাব্যথা সেরে যাবে নিমিষেই।

লেবু চা

মাথা ব্যথায় লেবু চা উপকার। এক্ষেত্রে লেবুর চায়ের মাঝে লেবুর চামড়াও কুচি করে মিশিয়ে দিলে উপকার পাবেন। পানি পান বেশিরভাগ ক্ষেত্রে শরীরে পানির অভাবে মাথাব্যথা হয়। ব্যথার ভাব দেখা গেলে ঝটপট দুই গ্লাস ঠাণ্ডা পানি পান করুন। আর দিনে অন্তত ৩ থেকে ৪ লিটার পানি পানের অভ্যাস থাকা ভালো।

আকুপ্রেশার

শরীরের নির্দিষ্ট জায়গায় চাপ প্রয়োগ করে রোগ দূর করার চীনা চিকিৎসা পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারেন। এক্ষেত্রে মুখের ভেতর বুড়ো আঙুল ঢুকিয়ে পর্যায়ক্রমে দুপাশের চোয়ালের হাড়ে চাপ দিন। এরপর দুটো বুড়ো আঙুল ঢুকিয়ে মুখের তালুতে চাপ দিন। উপকার পাবেন অল্প সময়েই।

ম্যাগনেশিয়াম

ম্যাগনেশিয়াম সমৃদ্ধ শাকসবজিতে রয়েছে অ্যান্টি-পাজমোডিক ও অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি (ব্যথানাশক) উপাদান। তাই মাথাব্যথা কমাতে বেশি করে ব্রকলি, পুঁইশাক, পালং শাক, শিম, সয়া দুধ, বাদাম খান।

ঘ্রাণ থেরাপি

ঘ্রাণেই রোগমুক্তির পন্থা হিসেবে বাটিতে গরম পানি ঢেলে তাতে রোজমেরি গুলিয়ে ঘ্রাণ নিতে পারেন। রোজমেরি ছাড়া, পিপারমিন্ট, ল্যাভেন্ডার, স্যান্ডালউড বা ইউক্যালিপ্টাসের ঘ্রাণও কাজে আসে। তবে ঘ্রাণ নেয়ার আগে টাওয়েল দিয়ে যতটা সম্ভব বাটিসহ মাথা ঢেকে নিবেন।

শিথিলতা

অনেক সময় অস্থিরতা থেকেও অসহনীয় মাথাব্যথা দেখা দিতে পারে। এক্ষেত্রে নিজেকে কিছুটা সুস্থির করতে পারলে ব্যথা চলে গেছে। এজন্য এক থেকে ধীরে ধীরে একশ পর্যন্ত গুনতে থাকুন। বড় করে শ্বাস নিন যাতে মাংসপেশী শিথিল হয়। শরীরকে টান টান করে রাখুন। গরম পানি দিয়ে গোসল করলেও ভালো ফল পাবেন।






মন্তব্য চালু নেই