মেইন ম্যেনু

প্রেম যখন কাজিনের সঙ্গে…

শৈশব থেকে আমাদের বেড়ে ওঠা হয় কাজিনদের (চাচাতো-মামাতো-খালাতো-ফুফাতো ভাই-বোন) সঙ্গে। বড় হওয়ার পরও তাদের সঙ্গে বজায় থাকে অম্ল-মধুর সম্পর্ক। অনেক সময় তৈরি হয় ভালোবাসা, যা হয়তো বিয়ে পর্যন্ত পরিণতি পায়।

এ ছাড়া, অনেক সময় অভিভাবকদের ইচ্ছায় কাজিনদের মধ্যে বিয়ের ঘটনাও ঘটে।

কাজিনদের মধ্যে বিয়ে নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে অনেক মত আছে। তবে স্বাস্থ্যগত দিকে থেকে কাজিনদের মধ্যে বিয়ের ক্ষেত্রে নেতিবাচক মত দেন চিকিৎসকরা। কিন্তু কেন? এ ধরনের বিয়ে তো সুখী হওয়ার কথা, যেহেতু ছেলে-মেয়ে দুজনই পরস্পরকে চিনে-জানে দীর্ঘদিন থেকে।

মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ও পরামর্শক শ্যামা গোস্বামী বলেন, স্বল্পস্থায়ী সম্পর্ক থেকে দুজন কাজিনের মধ্যে ভালোবাসার সম্পর্ক গড়ে উঠতে পারে। বিশেষ করে যখন দুজনের কেউ অন্য কোনো সম্পর্ক থেকে প্রত্যাখ্যাত হলেও সম্পর্ক গড়ে উঠতে পারে।

শ্যামা গোস্বামী আরও বলেন, এই ধরনের সম্পর্ক তৈরি হয় অনেকটা মোহ বা মায়া থেকে। কাজিনদের মধ্যে ভালোবাসার সম্পর্ক সাধারণত নষ্ট হয় না। যদি না দুজনের পরিবার সম্পর্ক মেনে নিতে পুরোপুরি অস্বীকৃতি না জানায়।

ক্লিনিক্যাল মনোরোগ বিশেষজ্ঞ রোহিনি তিরোদকার বলেন, দুজন কাজিনের বিয়ের ক্ষেত্রে তাদের স্বাস্থ্যগত জটিলতার বিষয়টি ভাবা উচিত। বিশেষ করে যখন তারা সন্তান নিতে চাইবে। স্বাস্থ্যগত কারণেই মূলত, কাজিনদের মধ্যে বিয়ের বিষয়টি উচিত মনে করা হয় না।

কারণ হিসেবে রোহিনি তিরোদকার বলেন, প্রথমত, অধিকাংশ কাজিনদের রক্তের গ্রুপ একই হয়। যদি রক্তের গ্রুপ আলাদাও হয়, তাদের শারীরিক উপাদান একই হয়। এই বিষয়টাই কাজিনদের বিয়ের ক্ষেত্রে বড় একটি সমস্যা। শারীরিক উপাদানে মিল থাকলে সুস্থ শিশু জন্ম দেয়া কঠিন হয়ে পড়ে। কাজিনদের মধ্যে বিয়ে হলে শারীরিক ও মানসিক জটিলতাপূর্ণ শিশুর জন্মদানের আশঙ্কা থাকে বেশি। মূলত প্রকৃতি এভাবেই কাজ করে।

তবে স্বাস্থ্যগত দিকে থেকে না দেখে এ ধরনের বিয়েতে খারাপ কিছু দেখছেন না বিয়ে করা দুই কাজিন সমীর ও মুনিরা। তারা প্রেম করে বিয়ে করেছেন। মুনিরা তাদের সম্পর্কের ব্যাপারে বলেন, “আমরা একই শহরে বাস করতাম। সাপ্তাহিক ছুটি, বিশেষ করে কোনো উৎসব, জন্মদিন বা বিবাহবার্ষিকীর কোনো অনুষ্ঠানে আমাদের দেখা হতো। কলেজে ওঠার পর কাজিনের সম্পর্ক থেকে আমরা আরও ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ি। গত বছর আমরা বিয়ে করি। আমার মনে হয়, কাজিনকে বিয়ে করা খারাপ কিছু নয়। সম্পর্কের পর থেকেই আমরা দুজন দুজনের ভালো বন্ধু এবং আমাদের বোঝাপড়া অনেক ভালো।”






মন্তব্য চালু নেই