মেইন ম্যেনু

ফখরুলের চেয়ে ভিআইপি সিলেট বিএনপি নেতারা!

সিলেট এমএমজি ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভিআইপি লাউঞ্জে বিএনপির স্থানীয় তিন নেতাকে প্রবেশ করতে দেয়া হলেও দলটির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে ঢুকতে দেয়া হয়নি বলে খবর পাওয়া গেছে।

দলীয় সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে।

সূত্র জানায়, শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে একটি ফ্লাইটে মির্জা ফকরুল সিলেট এম.এ.জি. ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান। এ সময় ভিআইপি লাউঞ্জের ভেতর দিয়ে বিমানবন্দরের বাইরে আসতে চাইলে কর্তৃপক্ষ তাকে ঢুকতে দেয়নি। পরে তিনি সাধারণ যাত্রীদের সঙ্গে কন কোর্স হল হয়ে বিমানবন্দরের বাইরে আসেন।

সূত্রমতে, বিএনপির শীর্ষ নেতা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে স্বাগত জানাতে সকাল থেকে ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ভিড় করেন দলীয় নেতাকর্মীরা। এ সময় বিমানবন্দরের ভিআইপি লাউঞ্জের দিকে এগিয়ে যান ফকরুলসহ বিএনপি নেতারা। তবে বাধ সাধে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। তখন ভিআইপি লাউঞ্জের ভেতরে ঢোকার জন্য বিমানবন্দরের ম্যানেজারকে অনুরোধ করেন স্থানীয় নেতারা। তাদের অনুরোধে কর্তৃপক্ষ বিএনপির তিন নেতাকে ভিতরে ঢোকার অনুমতি দিলেও ফকরুলকে ঢুকতে দেয়া হয়নি। তারা হলেন মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি এমএ হক, মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক ডা.শাহরিয়ার হোসেন ও সাবেক সংসদ সদস্য দিলদার হোসেন সেলিম।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সিলেট বিমানবন্দরে পৌঁছালে বিএনপির ওই তিন নেতা তাকে স্বাগত জানান। এ সময় ফখরুলের সঙ্গে তার স্ত্রী ছিলেন। সেখানে মির্জা ফখরুলকে স্বাগত জানান স্থানীয় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট নুরুল হক, মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব বদরুজ্জামান সেলিম, সদস্য রেজাউল হাসান কয়েছ লোদী, বিএনপি নেতা আবুল কায়েক চৌধুরী শামীম, আব্দুল গফ্ফার, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক, মাহবুব চৌধুরী, মঈন উদ্দিন সুহেল, ফরহাদ চৌধুরী শামীম, আব্দুল আহাদ খান জামাল প্রমুখ।

এরপর মির্জা ফখরুলকে নিয়ে নেতাকর্মীরা হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজারে আসেন। সেখানে তিনি জুমার নামাজ আদায় করেন এবং মাজার জিয়ারত করে। মাজার জিয়ারত শেষে একবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন ফখরুল। কিন্তু সেখানে তিনি কথা বলেনি।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার হঠাৎ করে বিএনপির ভাইস চেয়াম্যান শমসের মবিন চৌধুরী দল থেকে পদত্যাগ করেছেন। এরপর সারা দেশে রাজনৈতিক অঙ্গনে নানা জল্পনা কল্পনা শুরু হয়। এরই অংশ হিসেবে বিএনপির শীর্ষ ওই নেতা সিলেট সফরে এসেছেন বলে জানা গেছে। সফরকালে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও তার ছেলে তারেক রহমানের বার্তা সিলেট বিএনপির নেতাকর্মীদের দিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছে দলীয় সূত্র।






মন্তব্য চালু নেই