মেইন ম্যেনু

ফরিদপুরে ল্যাড এইড শাখার কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানীর অভিযোগ

ফরিদপুরে অবস্থিত ল্যাড এইড-এর কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানীর অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগে জানা যায়, প্রায় ১ বছর পূর্বে ঢাকার ল্যাড এইড লিমিটেডের একটি শাখা ফরিদপুরের প্রাণকেন্দ্র মুজিব সড়কের নিলটুলীতে চালু করা হয়। প্রতিষ্ঠানটি শুরু থেকেই বিভিন্ন সমস্যার অভিযোগ রয়েছে। ফরিদপুরে কর্মরত ডাক্তারদের দিয়ে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়। কিন্তু টাকার পরিমাণ অন্য ল্যাবের চাইতে দ্বিগুন বেশী নেওয়া হয় এখানে। কেউ প্রতিবাদ করলেই প্রভাবশালী মহলের নাম ব্যবহার করে হুমকি প্রদান করে থাকে ল্যাবের কর্মকর্তারা। ল্যাবটি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার শুরু থেকেই গ্রাম ডাক্তারদের একটি দালাল দল দিয়ে বিভিন্ন উপজেলা থেকে রোগী সংগ্রহ করে থাকে। রোগীরা চিকিৎসা নিতে আসলেই দ্বিগুন ভিজিট ও পরীক্ষা নিরিক্ষার টাকা দিতে হয়। ওই দ্বিগুন টাকা থেকে সকল দালাল গ্রাম ডাক্তারদের কমিশন দিয়ে থাকে। সাম্প্রতিক সময়ে ল্যাব এইড লিমিটেডের ম্যানেজার, সহকারী ম্যানেজার ও অন্যান্য কর্মকর্তারা পরস্ত্রী আসক্ত হয়ে পড়েছে। ল্যাব এইড লিমিটেডএ ৫/৭ জন সুন্দরী মহিলারা চাকরী করে বিভিন্ন পদে। ওই সকল মহিলাদের বিভিন্ন ভাবে দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে যৌন হয়রানীর চেষ্টা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে তাদের বিরুদ্ধে। ফরিদপুরের এক স্বর্ণব্যবসায়ীর সুন্দরী স্ত্রী ওই প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করে। তিনি বেতনের জন্য আবেদন করলে ম্যানেজার ও সহকারী ম্যানেজার তাকে যৌন হয়রানী করে এবং বিভিন্ন সময় কুপ্রস্তাব দিয়ে উত্যাক্ত করে। তিনি আরো জানান, ওই ল্যাব এইডের সকল কর্মকর্তারা এই ধরণের অনৈতিক কর্মকান্ড ঘটিয়ে থাকে। চাকুরী হারানোর ভয়ে কেই মুখ খুলতে সাহস পায়না।
এ বিষয়ে ল্যাব এইডের ম্যানেজার আমিনুল ইসলাম বাবু জানান, ওই স্বর্ণব্যবসায়ীর স্ত্রীর অভিযোগ ভিত্তিহীন। তিনি সময়মত ল্যাবে পৌছান না। মাস গেলেই বেতনের জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়েন। ম্যানেজার আরো জানান, সময়মত অফিস না করার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্তা নেওয়ার জন্য হেড অফিসে চিঠি দেওয়া হয়েছে। ওই কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে আমার ও ল্যাব এইডের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ বলে বেড়াচ্ছে।
ফরিদপুর ক্লিনিক ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক কোমরউদ্দিন জানান, আমাদের এসোসিয়েশনের কোনো নিয়মকানুন মেনে চলছে না ফরিদপুরের ল্যাব এইডের এই প্রতিষ্ঠানটি। সকল পরীক্ষা-নিরিক্ষার ক্ষেত্রে আমরা যে টাকা নিয়ে থাকি তার চেয়ে দ্বিগুনের বেশী টাকা নিয়ে থাকে ল্যাব এইড। আমরা এ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে প্রতিরোধ করার চেষ্টা করেছি কিন্তু পারি নাই। ল্যাব এইড কর্তৃপক্ষ প্রভাবশালী মন্ত্রী, সচিব, পুলিশ কর্মকর্তা ও রাজনৈতিক নেতাদের ভয়ভীতি দেখিয়ে থাকে এবং আমাদের যেকোনো সময় ক্ষতি করে দিবে এরূপ হুমকি দিয়ে থাকে। আমরা নিরুপায়।






মন্তব্য চালু নেই