মেইন ম্যেনু

ফাগুনে ত্বকের যত্ন

শীতকে বিদায় জানিয়ে বসন্ত তার রঙের সমাহার নিয়ে ধরা দিতে শুরু করেছে প্রকৃতিতে। রবীন্দ্রনাথের সেই বিখ্যাত গানের আকুতি যেন ছড়িয়ে পড়ছে চারদিকে : ফাগুন হাওয়ায় হাওয়ায় করেছি যে দান/আমার আপনহারা প্রাণ/আমার বাঁধন ছেঁড়া প্রাণ। কিন্তু ফাগুনের এই আপনহারা হাওয়ায় শুধু মন মাতালেই চলবে না। নিতে হবে ত্বকের সঠিক যতœও। কারণ দিনের ভ্যাপসা গরম ও রাতের হালকা হিমেল আবহাওয়ায় ত্বক হয়ে পড়ে রুক্ষ ও শুষ্ক। কর্মব্যস্ত জীবনে ঘরে বসে নিতে পারেন নিজের ত্বকের যতœ।

১. সপ্তাহে একদিন মধু, গ্লিসারিন, লেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে মাস্ক তৈরি করে লাগাতে পারেন। এই মাস্ক মুখ পরিষ্কারের পাশাপাশি ময়েশ্চারাইজারের কাজ করবে।

২. মুলতানি মাটি, কাঁচা হলুদ ও জলপাইয়ের তেল একসঙ্গে মিশিয়ে মাস্ক তৈরি করে মুখে, হাতে ও পায়ে লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেললেও ত্বক সতেজ হবে।

৩. যাদের হাতের চামড়া অত্যধিক রুক্ষ, তারা ক্ষারযুক্ত সাবান ব্যবহার না করে ময়েশ্চারাইজারযুক্ত সাবান ব্যবহার করলে উপকার পাবেন।

৪. গরমে রোদে বের হলে সানস্ক্রিন লাগিয়ে নিবেন। ত্বক ঠা-া রাখতে দইয়ের সঙ্গে শসার পেস্ট মিশিয়ে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। এছাড়া গোলাপজলও ব্যবহার করতে পারেন । ত্বকে পানির ভারসাম্য বজায় রাখতে ভালো মানের ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন।

৫. ঠোঁট কখনো খুব বেশি সময় শুষ্ক রাখবেন না। যাদের ঠোঁট জন্মগতভাবেই শুষ্ক তারা ঠোঁটে সবসময় চ্যাপস্টিক বা লিপবাম ব্যবহার করবেন। সামান্য দুধের সর বেটে অথবা কাঁচা দুধের ওপর জমে থাকা ননী মাঝে মধ্যে ঠোঁটে লাগাবেন, এতে ঠোঁট নরম থাকবে। প্রতিদিন রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ঠোঁটে ক্লিনজিং মিল্ক বা কোল্ড ক্রিম লাগিয়ে কিছু সময় পর ভেজা তুলা দিয়ে মুছে ফেলুন, তারপর হালকা নারিশিং ক্রিম লাগিয়ে ঘুমাতে যান।

ছেলেদের ত্বক মেয়েদের তুলনায় অনেক বেশি পুরু। তাছাড়া এই আবহাওয়ায় ত্বক আরও নিষ্প্রাণ ও তামাটে হয়ে যায়। অফিসে এসি আবার বাইরে বের হলেই রোদ। তাই প্রতিদিন রোদ থেকে বাসায় ফেরার পর অবশ্যই পানি দিয়ে ভালোভাবে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে। এতে করে বাইরের সব ধুলা ময়লা দূর হয়ে যায় এবং মুখে ময়লা জমে থাকতে পারে না। এর ফলে ব্রণ ওঠা থেকে নিবৃত্ত থাকা যায়। সপ্তাহে একদিন মুখে মধু ব্যবহার করুন। ৩-৪ চামচ মধু নিয়ে মুখে ভালোভাবে মেখে নিন। এবার ১০ থেকে ১৫ মিনিট রেখে কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এতে ত্বকের খসখসে ভাব দূর হবে এবং ত্বক থাকবে কোমল।

প্রচুর পানি পান করুন এবং সেই সঙ্গে সবজি বেশি করে খান। বাইরের ফাস্টফুড কিংবা গুরুপাক খাবারগুলো যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন। প্রতিদিন হালকা ব্যায়াম করতে পারেন। মাসে অন্তত একবার ভালো কোনো বিউটি পার্লার থেকে মেনিকিউর ও পেডিকিউর করলে হাত-পায়ের ত্বক সুন্দর থাকবে। খুব বেশি সমস্যা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারেন। ত্বক যেমন হোক না কেন নিয়মিত যতœ নিয়ে এ ফাগুনে ত্বক রাখুন প্রকৃতির মতোই প্রাণবন্ত ও সজীব।






মন্তব্য চালু নেই