মেইন ম্যেনু

ফাগুন এলো গুনগুনিয়ে

দখিনা হাওয়া, ঝরা পাতার শুকনো নুপুরের নিক্কন, প্রকৃতির মিলন এ বসন্তেই। বসন্ত মানেই পূর্ণতা। বসন্ত মানেই নতুন প্রাণের কলরব। বসন্ত মানেই একে অপরের হাত ধরে হাঁটা।

এ ঋতু বাসন্তী রঙে সাজায় মনকে, মানুষকে করে আনমনা। শীতের জীর্ণতা সরিয়ে ফুলে ফুলে সেজে ওঠে প্রকৃতি। গাছে গাছে নতুন পাতা, স্নিগ্ধ সবুজ কচি পাতার ধীর গতিতে বাতাসের সঙ্গে বয়ে চলা জানান দেয় নতুন কিছুর।

শীতে খোলসে ঢুকে থাকা বনবনানী অলৌকিক স্পর্শে জেগে উঠে। পলাশ, শিমুল গাছে লাগে আগুন রঙের খেলা। প্রকৃতিতে চলে মধুর বসন্তে সাজ সাজ রব। আর এ সাজে মন রাঙিয়ে গুন গুন করে অনেকেই গেয়ে উঠবেন- ‘মনেতে ফাগুন এলো..’।

কিংবা ফুল ফুটুক আর নাই ফুটুক আজ বসন্ত…। কিংবা আহা আজি এ বসন্তে কত ফুল ফোঁটে কত বাঁশি বাজে কত পাখি গায়..। কিংবা এতটুকু ছোঁয়া লাগে, এতটুকু কথা শুনি, তাই দিয়ে মনে মনে রচি মম ফাল্গুনী..। কিংবা ফুলের বনে যার পাশে যাই তারেই লাগে ভালো..। কিংবা আমাদের প্রিয় বাউল শাহ আবদুল করিমের ‘বসন্ত বাতাসে..সই গো বসন্ত বাতাসে, বন্ধুর বাড়ির ফুলের গন্ধ আমার বাড়ি আসে…।’ এসব অমর পংক্তিমালা আমাদের দেহে-মনে-বোধে-মননে তরঙ্গায়িত হবে বারবার।

বাস্তবতার পাথর চাপা হৃদয়ে সবুজ বিবর্ণ হওয়া চোখে প্রকৃতি দেখার সুযোগ পান না নগরবাসী। তবে কোকিলের ডাক, রঙিন কৃষ্ণচূড়া, আর আমের মুকুলের কথা বইয়ের পাতায় পড়ে থাকলেও একালের তরুণ-তরুণীরা কিন্তু বসে থাকতে রাজি নন। গায়ে হলুদ জামা আর বাসন্তী রঙের শাড়ি জড়িয়ে বেরিয়ে পড়বে তারা।

বাঙালির জীবনযাপনে, আচার-আচরণে, পালা-পার্বণে এই ঋতুর বড় প্রভাব রয়েছে। শুধু ঋতুরাজ বসন্তই নয়। বারো মাসে এক একটি ঋতু এসে এক এক রকমভাবে পাল্টে দেয় আমাদের জীবনযাপন।

বর্ষায় আমাদের যে দিনকাল যায়, শীতে কখনো সেরকম নয়। আবার গ্রীষ্মে অন্যরকম জীবন আমাদের। কেননা আমরা এখনো বেশিরভাগই প্রকৃতিনির্ভর। তাই যদি বাংলার কোনো প্রান্তে ফুল না ফোটে, কোথাও যদি আমের মুকুল দেখা না দেয়, তবুও বসন্ত আসে আমাদের মনে। তাইতো বলি ফুল ফুটুক না ফুটুক আজ বসন্ত।

আমাদের প্রকৃতিতে ও মনে বসন্তের আগমন অনিবার্য হয়ে ওঠে। শীতের শুষ্কতায় ম্লান প্রকৃতিকে সজীব করে তুলতে, মানুষের মনে সজীবতা দিতে বসন্তের প্রয়োজন হয়ে পড়ে। রবীন্দ্রনাথ বলেছেন, মধুর বসন্ত এসেছে, মধুর মিলন ঘটাতে। প্রকৃতির সৌন্দর্য ও সজীবতার সঙ্গে নতুন দিনের প্রত্যাশায় আসে বসন্ত।

আর তাই সকাল শুরু হওয়া মাত্রই নানা অনুষ্ঠান, বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রায় সকলে বরণ করবে বসন্তকে। সারা দেশে কী গ্রামে কী শহরে বসন্তকে বরণ করে নেবে। মানুষের ইচ্ছা এবারের বসন্ত আমাদের জীবনে সত্যিকার হয়ে আসুক। অর্থবহ হয়ে উঠুক পলাশ-শিমুলের রঙ, কোকিলের কুহুতান।






মন্তব্য চালু নেই