মেইন ম্যেনু

ফাস হলো গোপন তথ্য! যে নেশায় এসআই মাসুদ রাতে ডিউটি করতেন

বাংলাদেশ ব্যাংকের জনসংযোগ বিভাগের সহকারী পরিচালক গোলাম রাব্বিকে নির্যাতনের ঘটনা গণমাধ্যমে প্রকাশের পর মোহাম্মদপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাসুদ শিকদারের নানা অপকর্ম বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে। তিনি নাকি সাধারণত দিনের বেলায় ডিউটি করতেন না। রাতে ডিউটি করতেই বেশি পছন্দ করতেন। রাতে সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে টাকা কামানোই ছিল তার নেশা। শুধু তাই নয়, কলাবাগান থানায় দায়িত্ব পালনের সময়ও এসআই মাসুদের বিরদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ২০০১ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকার সময় কনস্টেবল পদে চাকরি নেন মাসুদ। চাকরির বয়স আট বছর পূর্ণ হলে পরীক্ষা দিয়ে এএসআই পদে প্রমোশন পান তিনি। এরপর তিনি ২০১৩ সালের দিকে এসআই পদে প্রমোশন হয় তার।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মোহাম্মদপুর থানার এক এসআই জানান, টাকা কামাইয়ের জন্য তিনি সবসময় রাতের বেলা ডিউটি নিতেন। সারাদিন ঘুমাতেন। সন্ধ্যা বেলায় থানায় আসতেন। থানায় অন্যান্য কর্মকর্তার সঙ্গে টাকা কামাইয়ের গল্প শেয়ার করতেন।

তিনি জানান, মোহাম্মদপুর থানায় আসার পর থেকেই টাকার পাগল হয়ে যান। মানুষকে ধরে গাড়িতে করে বিভিন্ন এলাকায় ঘুরিয়ে টাকা আদায় করতেন। কাউকে সহজে পরোয়া করতেন না। জুনিয়র পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে সবসময় খারাপ আচরণ করতেন।

মোহাম্মদপুর থানার এক কনস্টেবল জানান, এক বছর আগে তিনি মোহাম্মদপুর থানায় যোগদান করেন। এর আগে ধানমণ্ডি ও কলাবাগান থানায়ও তিনি এসআই হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সেখানেও এসআই মাসুদ শিকদার এরকমই বেপরোয়াভাবে মানুষের কাছ থেকে টাকা আদায় করতেন বলে অভিযোগ করেন তিনি।

কলাবাগান থানায়ও মাসুদের অপকর্ম

এসআই মাসুদ কলাবাগান ও ধানমন্ডি থানায় থাকার সময় গ্রাম থেকে পড়তে আসা অনেক ছাত্রকে ধরে মামলা ও রিমান্ডের নাম করে নিরীহ লোকদের কাছে টাকা-পয়সা ছিনিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। ২০১৩ সালে চঞ্চল নামে এক ছেলেকে ধরে কলাবাগান থানায় নিয়ে মারধর করেন তিনি। পরে তার পরিবারের কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। টাকা না দিলে ছেলেকে শিবির হিসেবে চালিয়ে দেয়া হবে বলে চঞ্চলের বাবা-মাকে ভয় দেখানো হয়। পরে টাকা দিয়ে ছেলেকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান ভুক্তভোগী ওই পরিবার।

নিজ গ্রামেও বিতর্কিত মাসুদ

পুলিশের এ কর্মকর্তা নিজ গ্রামেও বিতর্কিত নানা কর্মে। ‘পর্যটন লীগ’ নামে একটি সংগঠনের উদ্যোক্তা বলেও প্রচার রয়েছে এলাকায়। ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ার সোয়াইতপুরে এসআই মাসুদ পরিচিত আবদুল্লাহ নামে। পুলিশে কনস্টেবল থেকে এসআই হওয়ায় গ্রামের বাড়িতেও তার দাপট বেড়েছে, টিনশেড পৈতৃক বাড়ি রেখে স্থানীয় বাজারে করেছেন প্রাচীরঘেরা পাকা বাড়ি।

এলাকাবাসী জানায়,মাসুদ শিকদার এএসআই হওয়ার পর থেকেই বেপরোয়া জীবন শুরু করেন। পুলিশে চাকরি নেয়ার পরপরই পাশের গ্রামের আনসারের মেয়েকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ে করেন। মাসুদের শ্বশুর আনসার আলী নিজেও একজন ডাকাত হিসেবে পরিচিত। আর যে সময় বিয়ে করেন তখন মাসুদের পরিবারে অসচ্ছলতা ছিল। পুলিশের চাকরিটাই তার ঘরে ম্যাজিক হয়ে দেখা দেয়। যেন আলাউদ্দিনের বাতি পেয়ে যায় রাতারাতি।

অভিযোগ রয়েছে, মাসুদ শিকদার যখন বাড়িতে যেতেন তখন এলাকার যুবক ছেলেরা তাকে ঘিরে হইহুল্লোড় করত। আনন্দ করার জন্য পিকনিকের আয়োজন থেকে শুরু করে সব ধরনের আয়োজন করা হতো। মাদকের আড্ডাও জমে উঠত। এ কারণে এলাকার যুবক ছেলেরা এসআই মাসুদ বলে স্লোগান দিতো। টাকার প্রভাবের কারণে এলাকার লোকজনের কাছে পুলিশের একজন প্রভাবশালী কর্মকর্তা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন মাসুদ।

মাসুদের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন শিগগিরই

শিগগিরই এসআই মাসুদ শিকদারের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন মোহাম্মদপুর জোনের পুলিশের সহকারি কমিশনার মো. হাফিজ আল ফারুক।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মুঠোফোনে তিনি একথা বলেন। তিনি বলেন, যে কোনো তদন্ত নিয়ে তাড়াহুড়ো করা ঠিক নয়। ধীরে সুস্থে তদন্ত করে প্রতিবেদন দিলে তা সঠিক হবে।

তদন্ত কোন পর্যায়ে রয়েছে জানতে চাইলে পুলিশ কর্মকর্তা হাফিজ আল ফারুক বলেন, তদন্ত চলছে। এরপর তিনি ফোনের লাইন কেটে দেন।

জানতে চাইলে পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, গোলাম রাব্বিকে নির্যাতনের অভিযোগে মাসুদকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে। অপরাধ প্রমাণ হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।তবে এসআই মাসুদ শিকদার বলেছেন,নিরপেক্ষ তদন্ত হলে আমার কিছুই হবে না।-ঢাকাটাইমস






মন্তব্য চালু নেই