মেইন ম্যেনু

ফেসবুকে প্রেম! একেই বলে খাঁটি ভালবাসা!

দু’জনেরই উচ্চতা ৩ ফিটেরও কম। সম্পর্ক দশ বছরের। আলাপ সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে। ব্রাজিলের পাওলো আর কাটসুয়িয়া যে কোনও দম্পতির কাছে সুখি দাম্পত্যের দৃষ্টান্ত হতে পারেন!

৩০ বছরের পাওলো পেশায় একজন লিগ্যাল সেক্রেটারি। কাটসুয়িয়া একটা বিউটি সালোন চালান।

প্রথম দর্শনেই কাটসুয়িয়ার প্রেমে পড়ে যান পাওলো। কাটসুয়িয়া কিন্তু ভেবেছিলেন পাওলো ‘ফ্লার্ট’ করছেন তাঁর সঙ্গে। তাই তিনি নিজের সোশ্যাল অ্যাকাউন্টে পাওলোকে ব্লক করে দেন। মাস দেড়েক পর কাটসুয়িয়া আনব্লক করেন পাওলোকে। একদিন হঠাত্ প্রায় ২০০ মাইল পথ পেরিয়ে কাটসুয়িয়ার সঙ্গে তাঁর বাড়িতে দেখা করতে যান পাওলো। ধীরে ধীরে আলাপ থেকে প্রেমের দিকে গড়ায় তাঁদের সম্পর্ক। দু’বছর প্রেম পর্বের পরে বিয়ে করেন তাঁরা।

কাটসুয়িয়া জানান, অন্য যে কোনও দম্পতির মতো তাঁরাও খুব ঝগড়া করেন, আবার এক সঙ্গে রেস্তোরাঁয়া খেতে যান, বেড়াতেও যান এক সঙ্গেই।

উচ্চতার জন্য কি তা হলে কোনও সমস্যাই হয় না তাঁদের?

তাঁরা জানালেন, জীবনে বাধা এসেছে পদে পদে। এখনও নানা অসুবিধের সম্মুখিন হতে হয়। অনেকেই তাঁদের দেখে হাসে, বিদ্রুপ করে। তবে এমন মানুষও কম নেই যাঁরা তাঁদের দিকে এগিয়ে এসে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন।

বাধা যতোই থাকুক না কেন, একে অন্যের পরিপূরক হয়ে জমিয়ে সংসার করছেন দু’জনেই। এ বার মাতৃত্বের স্বাদ পেতে চান কাটসুয়িয়া। যদিও তাঁর ক্ষেত্রে সন্তানধারণ খুব একটা সহজ হবে না। কিন্তু তাতে কী! পাওলো আর কাটসুয়িয়া কথায়, তিন ফুটেরও কম উচ্চতায় দৈনন্দিন জীবনযাপনও তো মোটেই সহজ কাজ নয়! তাই জীবনের স্বপ্নগুলোকে কঠিন বাধা পেড়িয়েও একটু একটু করে পুরণের লক্ষ্যে এগোচ্ছেন দু’জন। তার জন্য যে কোনও চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত তাঁরা। বাড়ি একটা পোষা কুকুর আছে তাঁদের। নতুন বাড়িতে স্বামী, সন্তান আর পোষ্যকে নিয়ে জমিয়ে সংসার করতে চান কাটসুয়িয়া।






মন্তব্য চালু নেই