মেইন ম্যেনু

ফেসবুকে স্বামীর আরো একটি বিয়ের খবরে নববধূর আত্মহত্যা

মাত্র চারদিন আগে ভালোবেসে বিয়ে করেন তানিয়া (২০) ও তোফাজ্জল হোসেন হৃদয় (২২)। কিন্তু বিয়ের সে সুখ সইল না ময়মনসিংহের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী তানিয়ার।

এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্বামীর আরো একটি বিয়ের খবর জানতে পেরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি।

শনিবার সকালে ময়মনসিংহের শহরতলী রঘুরামপুর এলাকার একটি বাসা থেকে তানিয়ার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় স্বামী তোফাজ্জল হোসেন হৃদয়কে আটক করেছে পুলিশ।

প্রথম বিয়ের খবর গোপন করায় তানিয়া ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানিয়েছে।

হৃদয় একটি বেসরকারি টেক্সটাইল কলেজের ছাত্র এবং তানিয়া শহরের মুমিনুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজের অনার্স দ্বিতীয়বর্ষের ছাত্রী।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত ১৮ জুলাই টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার সাইদুর রহমানের ছেলে খন্দকার তোফায়েল আহমেদ হৃদয় প্রেম করে বিয়ে করেন তানিয়াকে।

বিয়ের পর উভয়ের পরিবার তাদের মেনে না নেয়ায় তারা সদর উপজেলার রঘুরামপুরে খালার বাড়িতে বসবাস শুরু করেন।

এরপর তানিয়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে হৃদয়ের আরো একটি বিয়ের খবর জানতে পারে। এ নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। এ কারণে তানিয়া ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন।

ময়মনসিংহ কোতয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তানিয়ার বাবা-মা কেউই বেঁচে নেই। তিনি শহরের চরপাড়া এলাকার এক আত্মীয়ের বাসায় থেকে পড়াশুনা করতেন।






মন্তব্য চালু নেই