মেইন ম্যেনু

ফ্রান্সে বন্যায় ১৩ জনের মৃত্যু

ফ্রান্সের উত্তর পূর্বাঞ্চলে তীব্র ঝড় এবং অবিরাম বর্ষণের ফলে সৃষ্ট বন্যায় কমপক্ষে ১৩ জন প্রাণ হারিয়েছে। ওই দুর্যোগের কারণে ওই অঞ্চলের বেশ কিছু এলাকায় এখনো বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে এবং যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটেছে বলেও খবর পাওয়া গেছে।

ফ্রান্সের অন্তিবেস শহরে রোববার সকালে গাড়ি পার্কি করতে গিয়ে বন্যার পানিতে ডুবে মারা যান পাঁচ জন। ওই একই এলাকায় বন্যার কারণে একটি ট্যানেলে গাড়িসমেত আটকা পড়ে প্রাণ হারিয়েছেন আরো তিন জন। এর আগে শনিবার রাতে কান শহরে ঝড়ে প্রাণ হারিয়েছেন ষাটোর্ধ এক বৃদ্ধা। এছাড়া অ্যান্টিবেস এলাকায় ঝড়ে নিহত আরো একজনের মৃতদেহ খুঁজে পেয়েছে উদ্ধারকারীরা।

অতি বৃষ্টির কারণে ফ্রান্সের ঐতিহ্যবাহী কান এবং পাশ্ববর্তী নিস শহরের রাস্তাঘাট বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে।

এক সংবাদ সম্মেলনে কান শহরের মেয়র ডেভিস লিসনার্ড বলেছেন, শহরের রাস্তাঘাট বন্যার পানিতে ভেসে গেছে। বানের পানিতে ভেসে শহরের অনেক গাড়িও সাগরে চলে গেছে। এছাড়া শনিবারের ঝড়ে অনেক গাছপালা উপড়ে পড়েছে। তবে শহরের বন্যার জলে আটকে থাকা অনেককে ইতিমধ্যে উদ্ধার করা হয়েছে বলেও তিনি জানিয়েছেন।

দেশটির দক্ষিণ-পূর্ব কোটে ডি আজুউর অঞ্চলে ব্রাগুই নদীর পানি উপচে পড়ে ওই বন্যা হয় বলে বিবিসি জানিয়েছে। দুদিনের অবিরাম বর্ষণের ফলে শনিবার সন্ধ্যায় ভূমধ্যসাগরের তীরবর্তী রিভেইরা অঞ্চলটি বন্যার পানিতে তলিয়ে যায়। যার কারণে এর সীমান্তবর্তী কান ও নিস শহর দুটিও বন্যায় ভেসে গেছে। নিস শহরের রাস্তাঘাট তলিয়ে যাওয়ায় এর প্রধান সড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। স্থগিত করা হয়েছে ট্রেন চলাচলও। ফলে শনিবার রাতে শত শত পর্যটককে নিস বিমানবন্দরে শহর ছাড়ার জন্য অপেক্ষা করতে দেখা গেছে।

এদিকে ঝড়ের পর শনিবার থেকে ওই অঞ্চলের ৩৫ হাজার ঘরবাড়ির বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে বলেও জানিয়েছে বিবিসি।






মন্তব্য চালু নেই