মেইন ম্যেনু

বগুড়ার শেরপুরে শান্তিপূর্ণভাবে নিবার্চন অনুষ্ঠিত

বগুড়ার শেরপুর পৌরসভার নির্বাচন উৎসবমুখর পরিবেশে শান্তিপূর্ণভাবে গতকাল সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৯টি কেন্দ্রে ৬০টি বুথে বিরতিহীনভাবে ভোট গ্রহন শেষে গননায় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী আলহাজ্ব মোঃ আব্দুস সাত্তার (নৌকা) প্রতিকে ৮৯১১ ভোট পেয়ে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত ও বিএনপি মনোনীত প্রার্থী স্বাধীন কুমার কুন্ডু(ধানের শীষ) প্রতিকে ৬১৭২ ভোট পেয়ে ২৭৩৯ ব্যবধানে পরাজিত হয়েছেন।

উক্ত নির্বাচনে ৪জন মেয়র পদে ৩৫জন কাউন্সিলর পদে ও ১০জন প্রার্থী মহিলা কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। আইন শৃঙ্খলা বাহিনি সক্রিয় ভুমিকা রাখায় পৌর এলাকার কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মির্জা আলী আশরাফের নেতৃত্বে আইন শৃৃঙ্খলা বাহিনি সক্রিয় ভুমিকা রাখায় পৌর এলাকার কোথাও কোন অপৃতিকর ঘটনা ঘটেনি। অনেক সময় ভোট কেন্দ্র দখলের কথা উঠলেও প্রশাসন সজাগ থাকায় সে রকম কোন ঘটনার খবরও পাওয়া যায়নি।

তবে নির্বাচন চলাকালীন সময়ে শহরের উলিপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে মহিলা বুথ থেকে ভোট প্রদান কালে ১জন পুরুষকে গ্রেফতার করেছে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

অপরদিকে কাউন্সিল পদে ১নং ওয়ার্ডে মোঃ রেজাউল করিম (ব্রিজ প্রতিক), ২নং ওয়ার্ডে বদরুল ইসলাম পোদ্দার ববি(উটপাখি), ৩নং ওয়ার্ডে নিমাই ঘোষ( পাঞ্জাবি) ৪নং ওয়ার্ডে মুকুল হোসেন(পানির বোতল), ৫নং ওয়ার্ডে একেএম জাহিদুর রহমান (উটপাখি), ৬নং ওয়ার্ডে নাজমুল আলম খোকন (উটপাখি),৭নংওয়ার্ডে এবিএম মোস্তাফিজার রহমান (টেবিল ল্যাম্প), ৮নং ওয়ার্ডে সৌমেন্দ্রনাথ ঠাকুর(পানির বোতল),৯নং ওয়ার্ডে ফিরোজ উদ্দিন আহমেদ জুয়েল (পানির বোতল) বিজয়ী হয়েছেন।

সংরক্ষিত মহিলা আসন(১,২.৩)ওয়ার্ডে করুনা রানী ঘোষ( পুতুল প্রতীক) (৪,৫ও ৬) ওয়ার্ডে আঞ্জুয়ারা বেগম( আঙ্গুর প্রতীক) এবং (৭,৮ও ৯) ওয়ার্ডে এসএম ফরিদা হক জুয়েল(কাঁচি) বিজয়ী হয়েছে বলে উপজেলা নির্বাচন অফিস সুত্রে জানা গেছে।






মন্তব্য চালু নেই