মেইন ম্যেনু

বদহজম সারিয়ে তুলুন এই ঘরোয়া উপায়ে

ঈদ মানেই হরেক রকমের সুস্বাদু খাবার। প্রচুর মশলা, ঘি, লবণ আর চিনি সমৃদ্ধ এসব ভারি খাবার রসনাকে যতই তৃপ্ত করুক না কেন, আপনার পেটের ওপর কিন্তু তা বেশ বড় একটা চাপ ফেলবে। পুরো মাস রোজা রাখার পর অনেকেই হামলে পড়েন হরেক রকমের খাবারের ওপর। খাওয়া শেষ হবার পরে প্রচুর মানুষ ভোগেন বদহজমে। অস্বস্তিকর এই সমস্যা থেকে আপনাকে মুক্তি দিতে পারে আপনার কিচেনেরই কিছু উপাদান। চলুন দেখে নিই ঘরোয়া প্রতিকারগুলো।

১) পুদিনা চা অথবা ক্যামোমাইল চা
গরম চা পান করাটা এমনিতেই অনেকের জন্য আরামদায়ক একটা অনুভূতি। পুদিনা অথবা ক্যামোমাইল চা আরও বেশি উপকারী। এই দুই চায়ের যে কোনো একটি বা দুইয়ের মিশ্রণ নিয়ে একটু একটু করে চুমুক দিন, দেখবেন বদহজম দূর হয়ে গেছে।

২) খাওয়ার আগে পান করুন এটি
আপনি নিশ্চিত যে ঈদের দাওয়াতে আপনাকে প্রচুর খেতে হবে, হবেই। তাহলে খাওয়ার আগে এই পানীয়টি চেখে দেখুন। ১ গ্লাস ঈষদুষ্ণ পানিতে ১ চা চামচ মধু এবং এক চা চামচ অ্যাপল সাইডার ভিনেগার মিশিয়ে নিন। দাওয়াতে খাওয়ার ৩০ মিনিট আগে এটি পান করুন। বদহজমের সমস্যায় ভুগতে হবে না।

৩) বেকিং সোডা
এক গ্লাস পানিতে এক চা চামচ বেকিং সোডা গুলে নিন। এতে অল্প একটু লেবু চিপে দিন যাতে ওপর থেকে অতিরিক্ত গ্যাস চলে যায়। এরপর অল্প অল্প করে পান করুন। এতে বদহজমের কারণ, পেটের অ্যাসিড কমে আসবে। তবে এই উপায়টি ঘন ঘন ব্যবহার না করাই ভালো।

৪) অ্যালোভেরা
ত্বকের বা চুলের যত্নে, পোড়া ত্বক উপশমে অ্যালোভেরা ব্যবহার হয় কিন্তু আপনি এটা বদহজম দূর করতেও খেতে পারেন বা এর শরবত পান করতে পারেন।

৫) চুইং গাম
সবার বাসাতেই খুঁজলে পাওয়া যাবে চুইং গাম, বাসায় না থাকলেও চট করে দোকান থেকে কিনে আনা যায়। চুইং গাম চিবানোর ফলে ইসোফ্যাগাল এবং ফ্যারিঞ্জিয়াল পিএইচ বাড়ে, অর্থাৎ এসিড কমে।

৬) কাত হয়ে ঘুমান
অনেকেরই বদহজম হয় ঘুমের মাঝে। বিশেষ করে খাওয়ার পর পরই যদি ঘুমাতে যান তাহলে বদহজম হবার সম্ভাবনা বেশি থাকে। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে কাত হয়ে ঘুমান। বাম কাত হয়ে ঘুমান, তাহলে ঘুমের মাঝে বদহজম হবার সম্ভাবনা কম থাকবে।

এছাড়াও যা যা করতে পারেন-
– একবারে বেশি খাবেন না, অল্প অল্প করে বেশি বার খান
– ধীরে ধীরে চিবিয়ে খান
– প্রচুর এসিড আছে এমন খাবার যেমন লেবু, কমলা এগুলো এড়িয়ে চলুন
– ক্যাফেইন গ্রহণের মাত্রা কমিয়ে দিন
– টাইট পোশাক পরা থেকে বিরত থাকুন
– ভরপেটে ব্যায়াম করবেন না
– খাওয়ার কমপক্ষে ৩ ঘণ্টা পর বিছানায় যান






মন্তব্য চালু নেই