মেইন ম্যেনু

বন্ধুর প্রেমিকার সঙ্গে প্রেম করা কি ভাল?

এক সময় আপনার কাছের বন্ধু প্রেমিকা ছিল। সেই বন্ধুর সঙ্গে ব্রেক আপ হয়ে গিয়েছে। তবে কি এবার আপনি চেষ্টা করবেন? নাকি যেমন নির্বিকার ছিলেন তেমনটাই থাকবেন? বন্ধুর প্রেমিকা নিয়ে বেশিরভাগ বাঙালি ছেলেরই একটু ব্যথা থাকে। অনেকেই গোপন প্রেম বুকে চেপে ঘুরে বেড়ান এবং ভাবতে থাকেন। কিন্তু সত্যিই কি বন্ধুর ‘এক্স’-এর সঙ্গে প্রেম করা উচিত? খবর এইবেলার।

যে ৪টি কারণে ভাল

১) যতই গলায় গলায় বন্ধুত্ব হোক না কেন, হালকা প্রতিযোগিতা থেকেই যায়। বিশেষ করে যখন পাড়ার বা কলেজের সবচেয়ে ‘চাহিতা’ সুন্দরী প্রিয় বন্ধুর প্রেমিকা হয়ে যায়। ব্রেক-আপের পরে সেই সুন্দরীকে নিয়ে বন্ধুর নাকের ডগায় ঘুরে বেড়ানোর মজাই আলাদা।

২) বন্ধু আপনার সম্পর্কে কী কী ভাবে, কী কী বাজে কথা বলে বা বলে না, সেসব কথা জেনে নিতে পারবেন তার এক্স-এর থেকে। সদ্য সম্পর্ক ভেঙে আসা মেয়েটিও মন উজাড় করে সব কথা বলতে চাইবে।

৩) বয়ফ্রেন্ডের বন্ধুর প্রতি অনেক মেয়েরই একটু টান থাকে। অনেকটা অবচেতনে আকর্ষণও। ব্রেক-আপের পরে সেই পুরুষের সঙ্গে যখন মেয়েরা প্রেম করে তখন কেমিস্ট্রিটা জমে ভাল।

৪) ব্রেক-আপের পরে যদি আপনার বন্ধু সেই সম্পর্কের হ্যাংওভার কাটিয়ে উঠে থাকেন তবে তার কাছ থেকেই সেই মেয়েটির ভালমন্দ বিষয়ে সব খবর পেয়ে যাবেন। প্রেম করার জন্য সমস্ত তথ্য হাতে থাকা প্রয়োজন।

যে ৪টি কারণে খারাপ

১) বন্ধুর সঙ্গে ব্রেক-আপের পরে মানসিক আশ্রয় হিসেবে আপনাকে আঁকড়ে ধরতে পারেন তার সাবেক বান্ধবী। এই ধরনের সম্পর্ক বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই টেকেনা।

২) অনেক সময় রিভেঞ্জ নিতে মেয়েরা সাবেক প্রেমিকের বন্ধুকে ডেট করে কিন্তু সেখানে ভালবাসা ছিটেফোটা থাকে না। পরে প্রেমে আঘাত পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

৩) সাবেক প্রেমিকার সঙ্গে আপনার সম্পর্ক বন্ধু যদি মেনে নিতে না পারে তবে বন্ধুত্বে চিড় অবশ্যই ধরতে পারে। কার জন্য কী হারাচ্ছেন সেটা বিচার করে দেখাটা জরুরি।

৪) বন্ধুর সঙ্গে প্রেম কেঁচে যাওয়ার পরেও তার হ্যাংওভার থাকতে পারে তার সাবেকন প্রেমিকার মনে। ভুলতে চাইলেও আপনাকে দেখেই বার বার তার কথা মনে পড়ে যাবে। এইভাবে সম্পর্ক মোটেই সুস্থ থাকবে না।






মন্তব্য চালু নেই