মেইন ম্যেনু

বরকতময় মাহে রমজান

রহমত, বরকত ও মুক্তির বার্তা নিয়ে আবারো এসেছে পবিত্র মাহে রমজান। এ মাস মুসলমানদের জন্য আল্লাহর তরফ থেকে এক বিশেষ রহমত স্বরূপ। পবিত্র কোরআন এবং হাদীসে এই রমজান সম্পর্কে সুস্পষ্ট বিধান রয়েছে।

প্রতিটি সক্ষম মুসলমান নর-নারীর ওপর এই মাসে রোজা বা সিয়াম সাধনা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। একই সঙ্গে এর অসংখ্য ফজিলত বর্ণনা করা হয়েছে কোরআন ও হাদীসে। এক রেওয়াতে বর্ণনা করা হয়েছে, রোজাদারের পুরস্কার স্বয়ং আল্লাহ পাক প্রদান করবেন। অন্য এক হাদীসে বর্ণনা করা হয়েছে রোজা মুমিনের জন্য ঢাল স্বরূপ।

মহান আল্লাহ তাআলা বলেন, রমজান মাস, যাতে নাযিল করা হয়েছে কোরআন মানুষের জন্য হিদায়াতস্বরূপ এবং হিদায়াতের সুস্পষ্ট নিদর্শনাবলী ও সত্য-মিথ্যার পার্থ্যক্যকারীরূপে। সুতরাং তোমাদের মধ্যে যে এ মাস পাবে, সে যেন তাতে সিয়াম পালন করে। আর যে অসুস্থ হবে অথবা সফরে থাকবে সে অন্যান্য দিবসে সংখ্যা পূরণ করে নেবে। (সূরা বাকারা: ১৮৫)

পবিত্র এ মাসে সুবেহ্ সাদিক থেকে শুরু করে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার থেকে বিরত থাকার পাশাপাশি, জাগতিক সব বিষয়ে সংযত জীবনাচারের তাগিদ দেওয়া হয়েছে। সব ধরনের পাপ ও অন্যায়-অপকর্ম থেকে দূরে থাকার নির্দেশনা রয়েছে। রমজান মাসে কথায় ও কাজে মিতাচারী হতে বলা হয়েছে। এটাই রমজান মাসের শিক্ষা।

অবিচ্ছিন্ন ইবাদত-বন্দেগির মাধ্যমে সংযম সাধনার মাস রমজান। নিজেকে বিরত রাখতে হবে সব ধরনের মিথ্যাচার, অন্যায় ও অপকর্ম থেকে। নিজের ও অন্যের ওপর জুলুম করা থেকে এবং অপচয় করা থেকে বিরত থাকাই সিয়াম সাধনার অন্যতম প্রধান দাবি। মানুষের কল্যাণের জন্যই রোজা। এ মাসে মানবতার সেবায় দান করলে অভাবক্লিষ্ট মানুষের কল্যাণ হয়, মানবতা উপকৃত হয়।

আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, তোমাদের নিকট রমজান এসেছে, বরকতময় এক মাস। আল্লাহ তাআলা তোমাদের ওপর এর রোজা ফরজ করছেন। এ মাসে আকাশের সবগুলো দরজা খুলে দেওয়া হয়, জাহান্নামের সবক’টি দরজা বন্ধ করে দেওয়া হয় এবং দুষ্ট-অবাধ্য শয়তানদের শৃঙ্খলাবদ্ধ করা হয়। এতে রয়েছে এমন এক রজনী, যা হাজার মাস অপেক্ষা উত্তম। যে এ রাতের কল্যাণ হতে বঞ্চিত হয় সে (সর্বৈবভাবে) বঞ্চিত হয়। { আহমাদ২/২৩০, আব্দ বিন হুমায়দ, আল-মুন্তাখাব ১৪২৯ এবং নাসায়ী ৪/১২৯}

রাসূলুল্লাহ (স.) বলেছেন- ‘রমজান একটি মহান ও পবিত্র মাস। এ মাসের মধ্যে এমন একটি রাত্র রয়েছে যা হাজার মাস হতেও উত্তম। এ মাসের দিনগুলোতে আল্লাহ রোযাকে ফরয করেছেন। যে ব্যক্তি এ মাসে কোন একটি সদভ্যাস (বা সত্কাজ) করে তা ছওয়াবের দিক দিয়ে অন্য মাসের একটি ফরয কার্যের সমতুল্য হয়ে থাকে। আর একটি ফরয আদায় করলে, তা অন্য মাসের ৭০টি ফরয আদায়ের সমতুল্য ছওয়াবের হয়ে থাকে।’

‘এটা হল ধৈর্যের মাস। আর ধৈর্য অবলম্বনের প্রতিদান হচ্ছে বেহেশতে। এটা পরোপকার ও সহানুভূতির মাস এবং এটা এমন একটি মাস যাতে ঈমানদারগণের রুজি বৃদ্ধি করা হয়ে থাকে।’

‘এ মাসে যে ব্যক্তি কোন রোযাদারকে ইফতার করায়, ইহার বিনিময়ে তার সমস্ত গুণাহ মাফ হয়ে যায় এবং সে জাহান্নাম হতে মুক্ত হয়।’ ‘তাছাড়া সে উক্ত রোযাদার ব্যক্তির তুল্য ছওয়াবও পাবে। এতে অবশ্য উক্ত রোযাদারের ছওয়াবে একটুও কমতি করা হবে না।’

রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘রোযাদারের জন্য দুইটি আনন্দ। একটি ইফতারকালে এবং অপরটি আল্লাহর সাথে দিদারকালে।’ তিনি আরো বলেন, ‘রোযাদারের মুখের গন্ধ আল্লাহর নিকট মেশ্ক হতেও অধিক সুগন্ধময়। তিনি বলেন, (রোযাদারগণের পক্ষে) রোযা হচ্ছে ঢালস্বরূপ।’

‘সুতরাং তোমাদের মধ্যে কেউই রোযা অবস্থায় নির্লজ্জ কথা বলবে না এবং বাজে বকবে না। যদি কেউ রোযাদারকে গালি দেয় অথবা তার সঙ্গে লড়াই করতে আসে, তবে সে যেন বলে দেয় যে, আমি রোযাদার।’ নবীয়ে করীম (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি রোযা অবস্থায় মিথ্যা কথা ও মিথ্যা কাজ হতে বিরত রইল না, তার উপবাসে আল্লাহর কিছুই যায় আসে না।’

‘এ মাসের প্রথম দশক রহমতের, দ্বিতীয় দশক ক্ষমার ও তৃতীয় দশক জাহান্নাম হতে মুক্তির জন্য নির্ধারিত।’ ‘যে ব্যক্তি এ মাসে তার চাকরের কাজ কমিয়ে দেয়, আল্লাহ তাকে ক্ষমা করেন এবং জাহান্নাম হতে আযাদ করে দেন।’

রসূলুল্লাহ (সা.) আরো বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি রমজান মাসে ঈমানের সঙ্গে ও ছওয়াবের আশায় রোযা রাখে, তার অতীত গোণাহ মাফ হয়ে যায়।’ ‘আর যে ব্যক্তি এ মাসে ঈমানসহ ছওয়াবের আশায় রাত জেগে (তারাবীহ) নামায পড়ে, তার অতীত সকল গোনাহ মাফ করে দেওয়া হয়।’

‘যে ব্যক্তি শবে ক্বদর রাতে ঈমানের সাথে ছওয়াবের আশায় রাত জাগরণ করে নামায পড়ে, তারও অতীত সকল গোনাহ মাফ করে দেওয়া হয়।’ এই রমজান মাসে শেষ দশ দিনের মধ্যে যেকোনো বেজোড় রাত লাইলাতুল কদরের রাত বলে কোরআন ও হাদীসে বর্ণিত হয়েছে। আর এ রাতের এবাদত হাজার মাসের এবাদত-বন্দেগীর চাইতে উত্তম।

তাই আমাদের সবার কদরের রাতসহ রমজান মাসের প্রতিটি ক্ষণ ইবাদত-বন্দেগীতে কাটানো শ্রেয়। রহমত, মাগফেরাত ও নাজাত পাওয়ার এ সুবর্ণ সুযোগ হেলায় হারানো উচিৎ নয়।

এই রমজান মাসে কোরআন শরীফ নাযিল হয়েছিল। সুতরাং আমাদের সবার উচিৎ রমজানে বেশি বেশি করে কোরআন তেলাওয়াত করা। যারা কোরআন পড়তে পারেন না তাদের উচিৎ মসজিদ, মক্তব বা মাদ্রাসার ইমাম বা যারা সঠিকভাবে কোরআন পড়তে জানেন তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে কোরআন তেলাওয়াত শিখে নেওয়া।

এগুলো সবই কল্যাণ, বরকত ও সুযোগ, যা এ মাসের আগমনের সাথে সাথে মুসলমানদের দ্বারে এসে উপস্থিত হয়। তাই প্রতিটি মুসলমানের উচিত একে একান্ত আনন্দচিত্তে গ্রহণ করা। আমলের ব্যাপারে পারস্পরিক ঈর্ষা ও প্রতিযোগিতা সৃষ্টি করা। এ সুযোগ প্রাপ্তির জন্য মহান আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করা। তাঁর প্রশংসা করা। অধিক পরিমাণে নেক কাজ সম্পাদন করে লাভবান হবার তাওফিক চাওয়া। তাঁর সাহায্য প্রার্থনা করা। নিশ্চয় এটি একটি মহান মাস। মর্যাদাপূর্ণ মৌসুম। মহান আল্লাহর পক্ষ হতে উম্মতে ইসলামিয়ার জন্য বহু বরকত ও কল্যাণময় দান।

অনেক মানুষ আছে যারা এ মাসকে কেবল ভাল খাবারের মাস হিসেবে জ্ঞান করে থাকে। তাই নিজ চাহিদা পূরণে চেষ্টার ত্রুটি করে না। উন্নত খাদ্য-খাবার, উৎকৃষ্ট সব পানীয় জোগাড়ই তাদের মূখ্য কাজ হয়ে দাঁড়ায়। কিন্তু অধিক পানাহার ইবাদতে বিঘ্নতার সৃষ্টি করে। প্রতিটি মুসলমানের নিকট শরিয়তের দাবিও হচ্ছে, পানাহার যতদূর সম্ভব কম করা যাতে ইবাদতের উদ্যম সৃষ্টি হয়। অধিকহারে ইবাদত করা যায়।

সংযত-সুন্দর জীবনযাপনে বিশ্ব মুসলিমকে শিক্ষা দেয় পবিত্র এই মাস। প্রত্যেক মুসলমানের কাছে রমজান মাস শুধু কাঙ্ক্ষিত নয়, মহান আল্লাহর নৈকট্য লাভের আশায় বিশ্বের মুসলিম জনগোষ্ঠী শ্রদ্ধা ও নির্মল ভালোবাসায় বরণ করে নেয় এ মাসকে। পবিত্র এ মাসের মধ্যে নিহিত রয়েছে ইহকাল ও পরকালের অশেষ কল্যাণ। মহান আল্লাহ এ মাসের প্রতিটি দিন ও মুহূর্তকে নির্ধারণ করে দিয়েছেন সংযম সাধনার জন্য।

কিন্তু দেখা যায় সংযমের এ মাসে আমরা অসংযমী হয়ে উঠি। সবচেয়ে অস্থিতিশীল হয়ে ওঠে বাজার। নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির পাশাপাশি কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি হয়। ভোক্তাদের অতিরিক্ত দামে পণ্য কিনতে বাধ্য করা হয়। রমজান মাস এলেই মাছ-মাংস সাধারণ ক্রেতাদের ক্রয়ক্ষমতার প্রায় বাইরে চলে যায়। এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী এ মাসে বেশি মুনাফার আশায় আগে থেকেই আটঘাট বেঁধে বসে থাকে। বাজারে এর প্রতিফলন দেখা দিতে শুরু করেছে।

এক মাস রোজার পর আসে ঈদ। ঈদ সামনে রেখে পোশাকের বাজারে সবচেয়ে বেশি অস্থিরতা লক্ষ করা যায়। জিনিসপত্রের দাম বাড়ানোর দৃষ্টিভঙ্গি মাহে রমজানের শিক্ষার সম্পূর্ণ পরিপন্থী। রমজান মাসে সুবিধা বুঝে ভোগ্যপণ্যের অতিরিক্ত মূল্য আদায় করা অন্যায়। অন্যদিকে সিয়াম সাধনার এ মাসে অপচয়ও সমীচীন নয়।

রমজানের তাৎপর্য গভীরভাবে উপলব্ধি করা প্রয়োজন। সিয়াম সাধনার শিক্ষা ও এর মাধ্যমে অর্জিত জীবনবোধ যদি জীবনাচরণে প্রতিফলিত হয়, তাহলে ব্যক্তিগত, পারিবারিক ও সামাজিক পরিমণ্ডলে শান্তিশৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠিত হবে। এক মাসের সংযম সাধনার ভেতর দিয়ে আমাদের সবার জীবন পবিত্র ও পুণ্যস্নাত হোক। পরিশুদ্ধ জীবানাচারে অভ্যস্ত হয়ে উঠি আমরা- রমজানে এই হোক আমাদের প্রার্থনা। আল্লাহ আমাদের সকলকে নেক কথা ও কাজে ব্যস্ত হবার তাওফিক দান করুন।






মন্তব্য চালু নেই