মেইন ম্যেনু

বরফের ধাক্কায় নয়, টাইটানিক ডোবার পিছনে অন্য কারণ!

বিশ্বের সবথেকে শক্তিশালী জাহাজ,যার সলিল সমাধি হয়েছে হিমশৈলের ধাক্কায় এটাই জানা সবার,এমনকি তা নিয়ে তৈরি হয়েছে সিনেমা,কিন্ত সাম্প্রতিক গবেষনা বলছে অন্য কথা। তাদের কথায় টাইটানিক ডোবার পিছনে রয়েছে আগুন।

সম্প্রতি আইরিশ সাংবাদিক, লেখক ও টাইটানিক গবেষক সেনান মলোনির তিরিশ বছরের গবেষণা বলছে অহ্নিকান্ডের জেরেই ঘটেছে সেই দূর্ঘটনা,১৫ এপ্রিল ১৯১২। ইংল্যান্ডের সাউদাম্পটন থেকে নিউইয়র্ক যাওয়ার পথে আটলান্টিক মহসাগরে ডুবে যায় টাইটানিক। মারা যায় দেড়হাজারেরও বেশি যাত্রী। পূর্বের গবেষণায় টাইটানিকে আগুন লাগার তত্ত্ব স্বীকার করে নেওয়া হয়েছিল, তবে আগুনকে প্রাথমিক বা প্রধান কারণ হিসেবে মনে করা হয়নি। ঠিক কীভাবে ডুবল টাইটানিক?

তা নিয়ে গবেষণায় বিস্তারিত ব্যাখা করেছেন সেনান মলোনি। তার বক্তব্য, অ্যাক্ট অফ গড বা প্রাকৃতিক কারণকে এতদিন পর্যন্ত জাহাজ ডোবার প্রকৃত কারণ বলা হয়েছে। কিন্তু, তা ঠিক নয়। আগুন, বরফ ও অবহেলা এই বিপর্যয়ের অন্যতম কারণ।

বেলফাস্ট থেকে সাউদাম্পটন বন্দরে জাহাজ পৌঁছানোর পরেও যে বয়লারে আগুন লেগেছিল তাকে মেরামত করা হয়নি। কারণ তাতে অনেক সময় লেগে যেত। কর্তৃপক্ষ চায়নি সময় জাহাজের ক্যাপ্টেন এডওয়ার্ড স্মিথও জানতেন আগুন লাগার বিষয়ে,কিন্ত তিনি মুখ খোলেননি, ।জাহাজটি আগুন লাগা নিয়েই গন্তব্যস্থলে যাচ্ছিল এবং তখনই দূর্ঘটনাটি ঘটে।






মন্তব্য চালু নেই