মেইন ম্যেনু

বরিশালে নির্বাচনী ডিউটির নামে জেলা আনসার অফিসে ঘুষের মহাউৎসব

কল্যাণ কুমার চন্দ, বরিশাল সংবাদদাতা: ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নিয়োজিত আনসার সদস্যদের কাছ থেকে ২‘শ টাকা করে বাড়তি আদায় করছে জেলা আনসার অফিসের কতিপয় কর্মকর্তারা। গত কয়েকদিন থেকে এ টাকা গ্রহন করছেন সদর থানা কমান্ডার মোঃ শাহজাহান ও আয়েশা সুলতানা। যদিও এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন জেলা কমান্ডেন্ট মোঃ কামাল। তিনি বলেন এমন অভিযোগ পেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। কিন্তু এ তথ্যের সত্যতা স্বীকার করেছে এক আনসার দলনেতা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তিনি বলেন, অনেক আগেই তারা টাকা দিয়েছেন। তা নাহলে কেন্দ্র পাবেন না। আর এসব অনৈতিক কর্মকান্ড সবসময়ই করে বেড়ায় শাহজাহান। জেলা কমান্ডেন্ট এর নাম বিক্রি করে টাকা তোলার বিষয়টি ভাল চোখে দেখছেনা সাধারন আনসার সদস্যরা। কিন্তু চাকুরী হারানোর ভয়ে সিনিয়রদের নিকট কিছুই বলতে পারছেনা। জানা গেছে, বরিশাল জেলায় ৭৪টি ইউনিয়ন ১৭জন করে আনসার কাজ করবে। এরমধ্যে একজন পিসি, একজন এপিসি, ৯ জন মহিলা ও ৬জন পুরুষ আনসার তাদের দায়িত্ব পালন করবেন। সে হিসেবে প্রায় ১১ হাজার ৪৭৫ জন আনসার সদস্য সরাসরি নির্বাচনী কাজে নিয়োজিত থাকবেন।

এছাড়াও রির্জাভ ফোর্স ও থাকবে। হিসাব মতে ২’শ টাকা হারে ২২ লাখ ৯৫ হাজার টাকা বাড়তি আদায় করা হয়েছে শুধুমাত্র জেলা অফিসে। এমনিভাবে প্রতি অনুষ্ঠানেই আনসারদের ডিউটি দেয়ার কথা বলে উৎকোচ গ্রহন করা হয় যা অফিসের সবারই জানা রয়েছে। এছাড়া বিএনপির ডাকা হরতাল অবরোধে যে সব আনসারগণ পুলিশের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন তাদের বেতন দেয়ার সময়ও এমনি ভাবেই একদিনের টাকা কর্তন করে রেখেছেন শাহজাহান। যদিও এ বিষয় একাধিকবার পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়েছিল। তখন বিষয়টি সহজভাবে মেনে নেয়ার কথা বলেছিলেন শাহজাহান। ঘুরে ফিরে আবারও তিনি উৎকোচ নেয়া শুরু করেছেন।

অভিযুক্ত শাহজাহানের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তার কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে আয়েশা বিষয়টি পুরোপুরি অস্বীকার করেন। এ ব্যাপারে রেঞ্জ পরিচালক মোঃ আমজাদ মোল¬া বলেন, এ ব্যাপারে এখনও কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।






মন্তব্য চালু নেই