মেইন ম্যেনু

বাংলাদেশি পরিবারের আইএসে যোগদান!

লন্ডন থেকে চল্লিশ মাইল দূরবর্তী শহর লুটনের বেড়িপার্ক এলাকায় বসবাসরত ১২ সদস্যের এক বাঙালি পরিবারকে গত দেড়মাস ধরে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

বুধবার (০১ জুলাই) বিবিসি নিউজে এ খবর প্রকাশ করে বলা হয়, প্রতিবেশীদের ধারণা, পরিবারের কোনো এক ধর্মান্ধ তরুণীর যোগসাজসে বাংলাদেশ থেকে ফেরার পথে তাদের সিরিয়ায় আইএস জঙ্গিদের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

নিখোঁজ ১২ সদস্যের মধ্যে ৭৫ বছর বয়সী পরিবার প্রধান বাবা আব্দুল মান্নান ও ক্যান্সার আক্রান্ত মা মিনারা খাতুন ছাড়াও, তাদের চার পুত্র- মোহাম্মদ জায়েদ হোসেইন, মোহাম্মদ তৌফিক হোসেইন, আবুল কাশেম শাকের ও মোহাম্মদ সালেহ হোসেইন, এক কন্যা রাজিয়া খানম এবং দুই পুত্রবধূসহ তিন নাতি-নাতনি রয়েছেন। এর মধ্যে, সবচেয়ে ছোট বাচ্চার বয়স এক বছর।

গত ১০ এপ্রিল এ পরিবার টার্কিস এয়ারলাইন্সে রিটার্ন টিকিট কেটে বাংলাদেশে গিয়েছিলেন। ফেরার পথে ১১ মে তারা ইস্তাম্বুলে অবতরণ করে তিনদিনের যাত্রা বিরতি শেষে ১৪ মে ব্রিটেন ফেরার কথা ছিলো।

কিন্তু ১৭ মে আত্মীয়-স্বজনের পক্ষ থেকে পুলিশকে জানানো হয়, তারা ব্রিটেন ফেরেননি। এরপর কাউন্টার টেরোরিজম পুলিশ নিখোঁজ পরিবারের ঘর তল্লাশি করে তদন্তের স্বার্থে আত্মীয়দের বিষয়টি গোপন রাখাতে বলে। দীর্ঘ দেড়মাস লাগাতার তদন্ত শেষে বুধবার বিবিসি রিপোর্টে এ নিখোঁজ ঘটনা প্রকাশ পায়।

নিখোঁজ পরিবার প্রধান আব্দুল মান্নান ও স্ত্রী মিনারা খাতুনের বাড়ি সিলেট জেলার ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলায়।

আব্দুল মান্নানের আত্মীয় লুটনের বিশিষ্ট কমিউনিটি নেতা আশুক আহমেদ সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, তিন প্রজন্মের সমন্বয়ে গঠিত ১২ সদস্যের এ পরিবার নিখোঁজের ঘটনায় আমরা খুবই উদ্বিগ্ন।

প্রতিবেশী রিজি মির্জা বলেন, আমরা গত দেড়মাস ধরে শুধু বিপুল সংখ্যক পুলিশের আনাগোনাই দেখছি। কিন্তু পুলিশ বাড়িতে কী করছে, এ বিষয়ে আমরা কিছুই জানতে পারিনি।

১৯ বছর বয়সী নিখোঁজ তৌফিক হোসেনের বন্ধু সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, তৌফিক ছিল খুবই ভালো একজন সাধারণ মানুষ। সন্দেহজনক কোনোকিছুর সঙ্গে তার জড়িত হওয়ার সম্ভাবনা আমরা দেখি না।

এদিকে, তিন প্রজন্মের এ বাঙালি পরিবার নিখোঁজের ঘটনায় বিভিন্ন গুঞ্জনের ডালপালা বিস্তার করছে লুটনের স্থানীয় কমিউনিটিতে। দীর্ঘ দেড়মাস কাউন্টার টেরোরিজম পুলিশ কেন বিষয়টি গোপন রাখলো, এ নিয়ে ব্যাপক সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছে।

লুটনে বসবাসরত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি বলেন, আব্দুল মান্নানের মেয়ের হয়তো আইসিসের সঙ্গে যোগাযোগ ছিল, তবে তিনি তার পুরো পরিবারকে সিরিয়ায় আইএসের কাছে হস্তান্তর করবেন এটি বিশ্বাসযোগ্য নয়।

তিনি বলেন, মেয়েটির দোষে পুরো পরিবারকে ব্রিটেনছাড়া করতে এটি অন্য কারও পরিকল্পনা কিনা, এ নিয়ে গোপনে আলোচনা-সমালোচনা চলছে কমিউনিটিতে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক লুটন প্রবাসী আরেক ব্যক্তি বলেন, এ নিখোঁজ ঘটনাটি আমরা প্রথম থেকেই জানি। পুরো দেড় মাস নিখোঁজের বাড়িতে পুলিশি আনাগোনা ও তল্লাশি আমরা দেখেছি। কিন্তু ঘটনাটি সংবাদমাধ্যমের কাছে জানানোর বিষয়ে আত্মীয়দের প্রতি নিষেধ ছিল বলে এতদিন কেউ জানতে পারেনি।






মন্তব্য চালু নেই