মেইন ম্যেনু

বাংলাদেশে শিশুদের শাস্তি দেয়ার সংস্কৃতি কেন?

বাংলাদেশের বরিশালে অনাথ শিশুদের জন্য সরকারি একটি আশ্রয়কেন্দ্রে দুই শিশুকে নির্যাতনের ঘটনার একটি ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার হয়েছে। যেখানে দেখা যায়, শিশু দুটোকে গাছের ডাল দিয়ে পেটাচ্ছেন ওই কর্মকর্তা।

তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তারা আশ্রয়কেন্দ্র থেকে বাইরে গিয়েছিল আর কর্মকর্তা তাদের দোষের জন্য শাস্তি দিচ্ছিলেন।

বাংলাদেশে শিশুদের মারধোরের এমন সংস্কৃতি কেন?

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞানের অধ্যাপক খন্দকার মোকাদ্দেম হোসেন মনে করেন, “সামাজিক এক ধরনের চর্চাই এর কারণ। মনে করা হয়, বাবা পরিবারের কর্তা হবেন, তিনি মাঝে মাঝে শাসন করবেন- এই ধারনার ধারাবাহিকতায় বিষয়টা ঘটে চলেছে”।

তিনি বলেন, একধরনের মিশ্র সংস্কৃতির চর্চা চলছে। এর প্রভাবও রয়েছে। ব্যক্তি, পরিবার বা প্রাতিষ্ঠানিক বিভিন্ন ক্ষেত্র দ্বারা শিশুদের ওপর বিভিন্ন নির্যাতনের এসব ঘটনা ঘটছে বলে মন্তব্য করেন অধ্যাপক হোসেন।

বাবা-মা কিংবা স্কুল বা আশ্রয়কেন্দ্রের মত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্তা ব্যক্তিরা মনে করেন, মাঝে শাসন না করলে শিশু শৃঙ্খলার বাইরে চলে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে জীবন ডিসিপ্লিন্ড হবে না। শিশুর মনে ভয় ঢুকিয়ে দেয়ার জন্য এই সংস্কৃতি চলে আসছে।

তাছাড়া শিশুকে ব্যক্তি বলে মনে করা হয় না। পারিবারিক ও সামাজিক শিক্ষা ও চর্চাই এর কারণ বলে মনে করেন এই সমাজবিজ্ঞানী।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে ষাট লাখ শিশু রয়েছে। স্কুল থেকে শুরু উচ্চ শিক্ষা পর্যায়ে তাদের সব ধরনের নির্যাতন থেকে সুরক্ষা করার যে ধরনের আইনগত বা প্রাতিষ্ঠানিক প্রক্রিয়া থাকা দরকার তা অনুপস্থিত রয়েছে।

তার মতে, আইন থাকলেও, আইনের কঠোর প্রয়োগ বা বাস্তবায়ন না থাকায় শিশুদের ওপর সহিংসতার ঘটনা ঘটছেই।






মন্তব্য চালু নেই