মেইন ম্যেনু

বাংলাদেশ থেকে ‘কেঁদে ফিরলেন’ রাতাশ্রী দত্ত

কলকাতার নায়িকা রাতাশ্রী দত্ত গতকাল শুক্রবার ঢাকা ছেড়েছেন। তিনি বাংলাদেশে এসেছিলেন মিজানুর রহমান লাবু পরিচালিত ‘ডি-ক্লাব’ ছবির শুটিং করতে। ছবির শুটিং সিংহভাগ শেষ, তাই আপাতত সন্ধ্যার এক ফ্লাইটে উড়াল দিয়েছেন কলকাতায়। ঢাকা ছাড়ার আগে রাতাশ্রী বললেন, ‘বাংলাদেশ থেকে কেঁদে ফিরতে হবে তা আগে কখনো ভাবিনি।’

কেন রাতাশ্রী কেঁদেছেন সেই কথাই বললেন তিনি, ‘আমি বাংলাদেশে মাত্র ১৫ দিন শুটিং করেছি। গল্পটা আমার পছন্দ হওয়ায় মূলত কাজটি করছি। আমার অংশের কাজ শেষ, ডাবিং করতে মার্চ মাসে ঢাকায় আসব আবার। এই কয়েকদিনে পুরো ইউনিটের সঙ্গে যে সম্পর্ক হয়েছে, মনে হচ্ছে হাজার বছরের চেনা সবাই। শুটিং শেষ করে ফেরার পথে আমার কান্না পাচ্ছিল, তাকিয়ে দেখি সবার চোখেই জল। আমি আর নিজেকে ধরে রাখতে পারিনি, অনেক কেঁদেছি। এতটা চোখের জল ফেলতে হবে আগে বুঝিনি। এ দেশ ছেড়ে যেতে ইচ্ছে করছে না। এটা আসলে নাড়ির টান, কারণ আমার বাবা-মায়ের জন্ম এই দেশের যশোরে।’

‘ডি-ক্লাব’ ছবিতে রাতাশ্রীর সঙ্গে অভিনয় করছেন বাংলাদেশের নবাগত নায়ক শিবলী নোমান। পুরো ইউনিটের সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা নিয়ে রাতাশ্রী বলেন, ‘আমি এখানে আসার আগে শুনেছিলাম টেকনিক্যাল বিষয়ে বাংলাদেশ পিছিয়ে আছে। কিন্তু আমার কাজ করে তা মনে হয়নি। পরিচালক বা যে কোনো টেকনিশিয়ান অনেক বেশি আন্তরিকভাবে কাজ করেছেন। আমি কলকাতার দুটি ছবিতে এরই মধ্যে কাজ করেছি। কোনো বিষয়ে তাদের চেয়ে কম মনে হয়নি। বরং অনেক কিছু শিখেছি এখান থেকে, কারণ আমরা যে বাংলা ভাষা কলকাতায় ব্যবহার করি, তাতে কতটুকু বাংলা থাকে আর বাংলাদেশের বাংলায় যেন বেশি বাংলা থাকে, অনেক কিছু শিখেছি এখান থেকে। আমি এখানে বারবার আসতে চাই।’

ছবিতে নিজের চরিত্র প্রসঙ্গে রাতাশ্রী বলেন, ‘আমি ছবিতে মাদকাসক্ত একটি মেয়ের চরিত্রে কাজ করছি। এর চেয়ে বেশি কিছু বলা যাবে না। কিন্তু ছবিতে অনেক বাঁক আছে যা গল্পের গতি তৈরি করেছে। আমার বিশ্বাস ভালো একটা ছবি দর্শক উপহার পাবে।’

গত বছরের ২৭ মার্চ এই ছবির কাজ শুরু হয়। এরই মধ্যে ব্যাংকক, অস্ট্রেলিয়ার সিডনি, বাংলাদেশের ঢাকা, বান্দরবান, সিলেটসহ বিভিন্ন জায়গায় শুটিং হয়েছে। ড্রিম স্টুডিওর ব্যানারে এতে রাতাশ্রী দত্ত ও শিবলী নোমান ছাড়া আরো অভিনয় করছেন আলীরাজ, মাহমুদুল ইসলাম মিঠু, শিমুল খান, মনিরা ইউসুফ প্রমুখ।






মন্তব্য চালু নেই