মেইন ম্যেনু

বাংলা জানি না, ইংরেজিতে বলবে, নাকি… তামিমকে রমিজের প্রশ্ন

প্রথম ম্যাচে দুর্দান্ত খেলেও ম্যাচ সেরার পুরস্কার পাননি। কাল দ্বিতীয় ম্যাচে অবশ্য তামিম ইকবালকে সেটি না দিয়ে উপায় ছিল না। পাকিস্তান সুপার লিগে তামিমের অপরাজিত ৫৫ রানই জিতিয়েছে পেশোয়ার জালমিকে। কিন্তু এখন প্রশ্ন উঠেছে ওই ম্যাচের পর পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে ধারাভাষ্যকার রমিজ রাজার একটি মন্তব্য নিয়ে।

ম্যাচ শেষে যখন তামিম ম্যাচ সেরার পুরস্কার নেওয়ার সময় রমিজই ছিলেন মঞ্চে। সবাইকে অবাক করে দিয়ে রমিজ তামিমের কাছে প্রশ্ন রাখেন, ‘আমি তো তোমার ভাষা জানি না, ইংরেজি কি চলবে ? নাকি… ?’ রমিজ কথা শেষ করেননি। তবে ‘নাকি’র যেভাবে থেমেছিলেন, বোঝাই যায়, খুব সম্ভবত তামিম উর্দুতে বলবেন কি না, সেটিই জানতে চান। তামিম বুঝিয়ে দেন, ইংরেজিতেই তিনি বলবেন। এরপর ইংরেজিতেই কথা হয় দুজনের।

আগের দিন ম্যাচের মাঝখানেও তামিম কথা বলেছেন। সাইড লাইনে দাঁড়িয়ে উপস্থাপিকাকে নাতিদীর্ঘ একটি সাক্ষাৎ​কার দেন। সেটি রমিজের না দেখার কথা নয়। তিনি তখন ছিলেন ধারাভাষ্য কক্ষে। তামিমের ইংরেজি জ্ঞান নিয়ে তবুও যদি সন্দেহ থেকে থাকে, রমিজ হয়তো লজ্জাই পেয়েছেন, পু​রস্কার বিতরণীতে তামিম দুর্দান্ত ইংরেজি বলে সব প্রশ্নের জবাব দেওয়ায়।

রমিজের এমন জিজ্ঞাসা বিস্ময়কর বললেও কম বলা হয়। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তামিমকে কম দিন ধরে দেখেননি। নিজেও অনেক দিন ধরেই জড়িয়ে আছেন ধারাভাষ্যের সঙ্গে। তামিম ইংরেজিতে কথা বলে কি না সেটা তাঁর না জানার কোনো কারণ নেই। প্রায় আট বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলা তামিম নিজেও প্রথমবার পুরস্কার বিতরণী মঞ্চে এলেন না। সেটি রমিজ ভুলে গিয়ে থাকলেও কালকের ম্যাচের মাঝখানে তামিমের সেই ছোট্ট সাক্ষাৎ​কারটি কি দেখেননি?

সবচেয়ে বড় কথা, প্রথম ম্যাচে ৫১ রান করার পরেই তো তামিম রমিজের সঙ্গেই কথা বলেছিলেন। তখন ভাষা নিয়ে প্রশ্ন তোলেননি রমিজ। তাহলে কাল এমন জিজ্ঞাসা কেন?

করাচি কিংসের প্রথম ম্যাচেও রমিজ একটা ‘ভুল’ করেছিলেন। ওই ম্যাচে সেরা খেলোয়াড় হয়েছিলেন সাকিব, কিন্তু রমিজ সাকিবের জায়গায় ডেকে বসেন লেন্ডল সিমন্সকে। সঙ্গে সঙ্গেই অবশ্য ‘ভুলটা’ শুধরে নিয়ে ডেকেছিলেন সাকিবকে। কিন্তু এরকম ‘ভুল’ রমিজ আর কত করবেন?






মন্তব্য চালু নেই