মেইন ম্যেনু

বাণিজ্যিক বাধা দূর করতে ভারতের প্রতি আহ্বান

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, চলমান ট্যারিফ ও নন-ট্যারিফ জটিলতা দূর হলে ভারতের বাজারে বাংলাদেশের উৎপাদিত পণ্য রপ্তানি আরো বাড়বে। বাংলাদেশ বিদ্যমান বাণিজ্যিক সমস্যা দূর করে ভারতে পণ্য রপ্তানি বাড়াতে চায়।

কলকাতায় শনিবার পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় এবং ভুটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিং তোবগের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় বাণিজ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন।

মন্ত্রী আগামী ১০-১২ জানুয়ারি ভারতের অন্ধ্র প্রদেশের বিশাখাপত্তমে ২২তম পার্টনারশিপ সামিটে যোগ দিতে বর্তমানে কলকাতায় অবস্থান করছেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বাণিজ্যিক বাধা দূর করে দুই দেশের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা বাড়ানো উচিত। বাংলাদেশের রপ্তানি বাণিজ্য দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিশ্ব বাজারে বাংলাদেশের পণ্যের চাহিদা অনেক। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার অর্থনৈতিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। পৃথিবীর বড় বড় অর্থনৈতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলো বাংলাদেশের এগিয়ে যাবার এবং সম্ভাবনার কথা বলছে। সরকারের ব্যবসাবান্ধব নীতির কারণে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বৃদ্ধি পেয়েছে। আঞ্চলিক বাণিজ্য বাড়ানোর জন্য প্রতিবেশী দেশগুলোর সহযোগিতা প্রয়োজন।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা বাণিজ্য প্রসারের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভারত, বাংলাদেশ ভুটান ও নেপালের মধ্যে যোগাযোগ স্থাপিত হলে এ অঞ্চলে বাণিজ্য অনেক বৃদ্ধি পাবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের রপ্তানি বাণিজ্যের পরিধি বাড়ছে। সরকার পরিকল্পিতভাবে রপ্তানি পণ্যের সংখ্যা বাড়ানো এবং নতুন নতুন বাজার সৃষ্টির লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। আঞ্চলিক বাণিজ্য বাড়ানোর বিষয়ে বাংলাদেশ অধিক গুরুত্ব দিয়ে যাচ্ছে। সহযোগিতা পেলে আঞ্চলিক বাণিজ্য আরো বাড়বে।

পরে বাণিজ্যমন্ত্রী ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি, রেলমন্ত্রী সুরেশ প্রভুর সঙ্গে বৈঠক করেন। এ সময় বাংলাদেশ ও ভারতের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বৃদ্ধি এবং বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। দুই দেশের মধ্যে চলমান বাণিজ্য আরো বাড়ানোর বিষয়ে গুরুত্ব আরোপ করা হয়। ভারতের পাট ব্যবসায়ীরা বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে পাট রপ্তানির ক্ষেত্রে চলমান সমস্যা দূর করার আহ্বান জানালে তিনি বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখার আশ্বাস দেন।






মন্তব্য চালু নেই