মেইন ম্যেনু

বান্দরবান জেলা পরিষদের নবনিযুক্ত সদস্য লামায় সংবর্ধিত

মোহাম্মদ শামছুদ্দোহা, জেলা প্রতিনিধি, বান্দরবান: বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের অর্ন্তবর্তীকালীন পরিষদের নবনিযুক্ত সদস্য হলেন লামা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা জামাল। নতুন সদস্যকে বরণ করতে ২৫ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ঘটিকায় লামা বাজারস্থ জেলা পরিষদ গেষ্ট হাউজ মিলনায়তনে গণসংবর্ধনার আয়োজন করে লামা পৌরসভা।

সর্বস্তরের মানুষের উষ্ণ ভালবাসায় ও ফুলেল শুভেচ্ছা দিয়ে শতাধিক গাড়ী, বিপুল সংখ্যক মোটর সাইকেল, অর্ধশত তোরণ নির্মাণ করে এক শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে নবনিযুক্ত সদস্যকে বরণ করে। উপজেলার সাতটি ইউনিয়ন, পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ড ও প্রত্যান্ত দূর্ঘম অঞ্চল থেকে পাহাড়ী বাঙ্গালী পুরুষ মহিলা খন্ড খন্ড মিছিলের মধ্য দিয়ে মোস্তফা জামাল এর গণসংবর্ধনায় যোগ দেয়। গণসংবর্ধনা ঘিরে লামা বাজারের আনাচে কানাচে ব্যানার, ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে।

লামা পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়র জহিরুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে গণসংবর্ধনায় প্রধান অতিথি ছিলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক লামা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইসমাইল। সংবর্ধিত অতিথি হিসেবে নবনিযুক্ত সদস্য মোস্তফা জামাল উপস্থিত ছিলেন। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি শেখ মাহাবুবুর রহমান, সম্পাদক বাথোয়াইচিং মার্মা, যুগ্ন সম্পাদক বিজয় কান্তি আইচ, সাংগঠনিক সম্পাদক ছাচিং প্রু মার্মা, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ রফিক, সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম, পৌর যুবলীগের সভাপতি মোঃ তৈয়ব আলী, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মামুন সহ প্রমূখ।

সংবর্ধিত অতিথি মোস্তফা জামাল বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী বাবু বীর বাহাদুর এর উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি লামা উপজেলায় এমন এলাকা নেই। আমাকে নতুন করে জেলা পরিষদের সদস্য নিযুক্ত করায় জেলা আওয়ামীলীগ ও পার্বত্য জেলা পরিষদকে ধন্যবাদ জানাই। লামা আওয়ামী লীগ আজ অনেক সু-সংগঠিত। যার ফলে সম্প্রতি সময়ে লামা পৌরসভা নির্বাচনে ব্যাপক ব্যবধানে আওয়ামী লীগ প্রার্থী জয়লাভ করেছে। আসন্ন লামা উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সংখ্যাগরিষ্ট আসন অর্জন করবে।

প্রধান অতিথি উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক লামা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইসমাইল বলেন, জেলা পরিষদে সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধির ফলে কাজের গতি বাড়বে। প্রত্যেক সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি থেকে সদস্য নির্বাচিত করা হয়েছে। যার ফলে সম্প্রদায় ভিত্তিক যেমন উন্নতি হবে তেমনি দুর্গম এলাকায়ও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগবে। লামাবাসী যে উষ্ণ ভালবাসায় আমাদের ঋণী করেছে জেলা পরিষদ তা মনে রাখবে।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই