মেইন ম্যেনু

বালিয়াকান্দি সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে ২বছর ধরে অতিরিক্ত সাব-রেজিষ্টার দিয়ে চলছে কার্যক্রম

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলা সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে ২ বছর ধরে সাব-রেজিষ্টারের পদায়ন না থাকায় অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত সাব-রেজিষ্টার দিয়ে খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে কার্যক্রম। এতে জমির ক্রেতা-বিক্রেতাদেরকে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। অন্যদিকে সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব।

উপজেলা সাব-রেজিষ্ট্রি অফিস সুত্রেজানাগেছে, ২০১৩ সালের ২৩ অক্টোবর সাব-রেজিষ্ট্রার বিজয় কৃষ্ণ বসুর বদলী হলে তারপর আর নতুন করে সাব-রেজিষ্ট্রারের পদায়ন হয়নি। কখনো পাংশা, রাজবাড়ী অথবা গোয়ালন্দে দায়িত্বপ্রাপ্ত সাব-রেজিষ্ট্রার বালিয়াকান্দি অফিসে অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করে আসছে। সপ্তাহে দুইদিন কোন মত অফিস করার কারণে জমির ক্রেতা ও বিক্রেতারা প্রতিনিয়ত জমি রেজিষ্ট্রি করতে এসে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।

জমির ক্রেতা-বিক্রেতারা জানান, বালিয়াকান্দি সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে সাব-রেজিষ্ট্রার পদায়ন না থাকার কারণে হাওলাতি সাব-রেজিষ্ট্রার দিয়ে কার্যক্রম চলে। সপ্তাহে ২দিন অফিস করলেও অনেক সময় বিভিন্ন অজুহাতে সাব-রেজিষ্ট্রার অনুউপস্থিত থাকে। ফলে জমির ক্রেতা ও বিক্রেতাদের কাজ শেষ না করেই ফিরে যেতে হয়। এতে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হয়। নিয়মিত সাব-রেজিষ্ট্রার না থাকার কারণে দলিল সংখ্যা হ্রাস পাচ্ছে। ফলে সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

কয়েকজন দলিল লেখক জানান, নিয়মিত অফিস না করার কারণে জমির ক্রেতা ও বিক্রেতারা ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। দ্রুত একজন সাব-রেজিষ্ট্রার পদায়ন করা উচিত। তাহলে জমির ক্রেতা-বিক্রেতাদের ভোগান্তি লাঘব হবে।






মন্তব্য চালু নেই