মেইন ম্যেনু

বাসা ছেড়ে পালিয়েছে ‘ধর্ষক’ সাফাত

রাজধানীর বনানীতে দুই তরুণী ধর্ষণ মামলার আসামি সাফাত আহমেদের গুলশানের বাসায় অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। তবে সাফাতকে বাসায় পাওয়া যায়নি।

সাফাতের বাবা আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার জানান, ১০-১২ পুলিশ আজ সকালে তাদের বাসায় আসেন। কিন্তু সাফাত গত রাতে বাড়ি থেকে বেড়িয়েছে।

তিনি জানান, সাফাত এখানে নেই। কোথায় গেছে, আমরা জানি না। আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি।

তদন্ত কর্মকর্তা বনানী থানার পরিদর্শক আবদুল মতিন বলেন, ধর্ষণ মামলার প্রত্যেক আসামির বাসায় অভিযান চালানো হচ্ছে। সাফাতের বাসায় ১০-১২ জন পুলিশ পাঠানো হয়েছে। সাফাতকে তার বাসায় পাওয়া যায়নি। কিন্তু তার বাবা গণমাধ্যমে মিথ্যাচার করছেন যে, সাফাত বাড়িতে অবস্থান করছে।

দুপুর ১২টা ৫৫ মিনিটের দিকে সাফাতের বাসা থেকে বের হয়ে যাওয়ার সময় বনানী থানার এসআই মিল্টন বলেন, আমরা ভেতরে খুঁজেছি। আসামিকে পাইনি। কিছু আলামত জব্দ করেছি। এর চেয়ে বেশি কিছু বলতে পারবো না।’

উল্লেখ্য, গত ২৮ মার্চ বনানীর ‘দ্য রেইন ট্রি’ হোটেলে সাফাত আহমেদের জন্মদিনে যোগ দিতে গিয়েই বন্ধুদের যোগসাজশে ধর্ষণের শিকার হন বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া দুই তরুণী। ওই ঘটনার ৪০ দিন পর ৬ মে (শনিবার) সন্ধ্যায় বনানী থানায় ৫ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়।

আসামিরা হচ্ছেন- সাদনান সাকিফ, তার বন্ধু সাফাত আহমেদ, নাঈম আশরাফ, সাফাতের গাড়িচালক বিল্লাল ও তার দেহরক্ষী (নাম পাওয়া যায়নি)।

মামলা দায়েরের পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ওই দুই তরুণীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও ধর্ষণের আলমত সংগ্রহ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। তবে ধর্ষণের আলামত পাওয়া নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডাক্তার সোহেল মাহমুদ। তিনি জানান, ধর্ষণের ঘটনাটি প্রায় দেড় মাস আগের, সে জন্য আদৌও কোনো আলামত পাওয়া যাবে কি না তা নিয়ে আমাদের যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে।



(পরের সংবাদ) »



মন্তব্য চালু নেই