মেইন ম্যেনু

বিদায়ী টেস্টে ক্লার্কের অন্যরকম ‘চমক’

রিকি পন্টিংয়ের পর অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের দায়িত্ব ওঠে মাইকেল ক্লার্কের কাঁধে। ততদিনে ক্লার্ক পুরোদস্তুর তারকা। পন্টিংয়ের বিদায়ের পর ক্লার্ক বেশ ভালো মতোই অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলকে নেতৃত্ব দেন।

দেশে ও দেশের বাইরে সমানতালে সিরিজ জয় করে ক্লার্কের দল। বিদায়ী টেস্ট বাদে ২০১১-২০১৫ সাল পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়াকে ৪৬ টেস্টে নেতৃত্ব দেন ক্লার্ক। এর মধ্যে ২৩ জয়ের বিপরীতে ১৬ পরাজয়ের তিক্ত স্বাদ পেয়েছেন ক্লার্ক। ড্র হয়েছে সাতটি ম্যাচ।

ওভালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অ্যাশেজ সিরিজের পরই বিদায় নিচ্ছেন ৩৪ বছর বয়সি ক্লার্ক। বিদায়ী টেস্টে ব্যাট হাতে চমক দেখাতে না পারলেও অধিনায়কত্বে চমক দেখিয়েছেন। ৪৬ ম্যাচের মধ্যে চার ম্যাচে প্রতিপক্ষকে ফলোঅনে ফেলার সুযোগ পেয়েছিলেন মাইকেল ক্লার্ক। তবে একটিও কাজে লাগাননি। কিন্তু ৪৭তম ম্যাচে এসে প্রথমবারের মত প্রতিপক্ষকে ফলোঅনে ফেললেন আক্রমণাত্মক ক্লার্ক। এর আগের চার ম্যাচে প্রতিটিতেই জয় তুলে নিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া।

শনিবার অস্ট্রেলিয়ার করা ৪৮১ রানের জবাবে প্রথম ইনিংসে ১৪৯ রানে গুটিয়ে যায় ইংল্যান্ড। এর আগে ২০১২ সালে ভারতকে, ২০১৩ ও ২০১৫ সালে ইংল্যান্ডকে এবং ২০১৪ সালে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ফলোঅনে ফেলার সুযোগ পেয়েছিলেন ক্লার্ক। কিন্তু প্রতিটি ম্যাচেই দ্বিতীয় ইনিংসে নিজেরা ব্যাটিং করে লিড বাড়িয়ে বড় জয় তুলে নেন। তবে এবার নিজের শেষ ম্যাচে ইংল্যান্ডকে ফলোঅনে ফেলে বড় জয়ের স্বাদ পেতে যাচ্ছেন ক্লার্ক। ৩৩২ রানে পিছিয়ে থেকে ব্যাটিংয়ে নেমে দ্বিতীয় ইনিংসেও অসি বোলারদের দাপটে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেনি ইংলিশরা। ১৯৯ রান তুলতেই ৬ উইকেট হারিয়েছে স্বাগতিক দল। দিন শেষে তাদের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ২০৩। ৪ উইকেট হাতে থাকলেও এখনো ১২৯ রানে পিছিয়ে ইংল্যান্ড।






মন্তব্য চালু নেই