মেইন ম্যেনু

বিদেশী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা চালাতে এক অন্যরকম যৌনব্যবসা!

আমেরিকার ভিলিনোভা বিশ্ববিদ্যালয়। এখানে বৃত্তি পাওয়ার পরও আইনে স্নাতক হওয়ার পাঠক্রমের প্রথম বর্ষের টিউশন ফি এবং আনুষাঙ্গিক খরচই প্রায় ৫০ হাজার ডলার। পড়ার জন্য এই বিপুল খরচের কারনে অনেক ছাত্রছাত্রীকেই দেনার দায়ে ডুবে যেতে হয়। আবার অনেকেই দেনা না করেই দিব্যি চালিয়ে যাচ্ছে পড়াশুনো। কিন্তু কিভাবে দেনা না করেই পড়াশুনো চালাচ্ছে ‘অনেকেই’?

এইসব ছাত্রছাত্রীরা যারা দেনা করছেন না অথচ লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছেন তারা আসলে এক বা একাধিক ‘সুগার ড্যাডির’ সাহায্য পাচ্ছেন।

‘সুগার ড্যাডি’ এই শব্দবন্ধের সঙ্গে কি আপনার পরিচয় আছে? না থাকলে জেনে নিন এবার। ‘সুগার ড্যাডি’-রা হলেন সেইসব পুরুষ যারা এককালীন বা নিয়মিত বিরতিতে টাকা খরচ করেন তাদের ‘সুগার বেবি’, অর্থাৎ কম বয়সী মেয়েদের সঙ্গ পেতে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীরা এখন পড়ার খরচ চালানোর জন্য এমন সুগার ডেডির সাথে যোগাযোগ করছেন। আর এই যোগাযোগের মাধ্যম হচ্ছে একটি ওয়েব সাইট।

এরকমই জানাচ্ছেন, সিকিং অ্যারেঞ্জমেন্ট ডট কম নামক একটি ওয়েবসাইট। এই ওয়েবসাইটটি ‘সুগার ড্যাডি’ ও ‘সুগার বেবি’দের মধ্যে যোগাযোগ ঘটিয়ে দেয় পারিশ্রমিকের বিনিময়ে।

ওয়েবসাইটটির প্রতিষ্ঠাতা ব্র্যান্ডন ওয়েড জানাচ্ছেন, প্রথম দিকে তাঁরা ছাত্রীদের কথা ভেবে এই ওয়েবসাইটটি তৈরী করেননি। কিন্তু পরে দেখা গেল বিশাল সংখ্যক ছাত্রছাত্রীরা এখানে নাম লেখাচ্ছেন। বর্তমানে এই ওয়েবসাইটটির মোট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৯ লক্ষ আর তার এক তৃতীয়াংশই ছাত্রছাত্রী। পরিস্থিতি দেখে ওয়েবসাইটটির কর্তৃপক্ষ ছাত্রছাত্রীদের ক্ষেত্রে চাঁদা (সাবসক্রিপশন ফি) মওকুফ করে দিয়েছেন। যদিও ‘সুগার ড্যাডি’দের এই ওয়েবসাইট ব্যবহার করার জন্য মাসে ১৮০ ডলার পর্যন্ত খরচ করতে হয়।

আমেরিকার বিভিন্ন শহরে জীবন ধারণের মান এতটাই উঁচু যে খরচের পরিমানও অনেক। ফলে সেখানে পড়াশোনো এবং থাকা খাওয়ার জন্য যে ছাত্রছাত্রীরা হামেশাই অর্থ সংকটে পড়বে এটাই স্বাভাবিক। আর তাই ‘সুগার বেবি’ ও ‘সুগার ড্যাডি’রা পরস্পরের পরিপূরক হয়ে উঠছে সহজেই। একদিকে অর্থের হাতছানি আর অন্যদিকে মোহিনী মায়া।

তবে সমালোচকরা এই ব্যবস্থাকে “যৌন ব্যবসার নামান্তর” বললে উল্লেখ করেছেন। এসব ছাত্রীরা যৌনতার বিনিময়ে টাকা উপার্জন করছেন। অনেকে নিরুপায় হয়ে এ পথ বেছে নিয়েছেন।অন্যদিগন্ত






মন্তব্য চালু নেই