মেইন ম্যেনু

বিদেশে বসে ঢিল ছুড়ে সংলাপ হয় না

দেশের চলমান সংকট নিরসনে সরকারের প্রতি বিএনপির সংলাপের আহ্বানের জবাবে সড়ক, পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, “বিদেশে বসে ঢিল ছুড়ে সংলাপ হয়না।

সরকারের সঙ্গে সংলাপ করতে যোগ্যতা লাগে, শক্তি লাগে, সাহস লাগে, সামর্থ্য লাগে।”

বিএনপির উদ্দেশে তিনি বলেন, “আজকে ৯০ এর দশকের মতো আন্দোলন করতে পারলেও বুঝতাম সংলাপের যোগ্যতা আছে।”

শুক্রবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) লেখকদের সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ডিআরইউর ২২ জন সদস্যকে বই প্রকাশের জন্য সম্মাননা দেয়া হয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, “সরকার পরিবর্তন হয় নির্বাচনের মাধ্যমে, আন্দোলনের মাধ্যমে নয়। এর জন্য সংলাপের পরিবেশ তৈরি করতে হয়। ”

তিনি বলেন, বিক্ষিপ্তভাবে ঢিল ছুড়ে কি সরকার পরিবর্তন সম্ভব। এটা আফগানিস্তান বা পাকিস্তান নয়, আমরা রক্ত দিয়ে দেশ অর্জন করেছি। আফগানিস্তান বা পাকিস্তানের এ অর্জন নেই। চোরাগোপ্তা হামলা চালিয়ে এই দেশকে আফগানিস্তান বা পাকিস্তান বানানো যাবেনা, যারা এই স্বপ্ন দেখছেন তারা বোকার স্বর্গে বাস করছেন।”

যারা দেশকে অকার্যকর করতে চায় তারা নিজেরাই অকার্যকর হবে এমন মন্তব্য করেন সেতুমন্ত্রী।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সংলাপের আহ্বানের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি বলেন, “জাতীয় সংলাপ করতে হলে সংলাপের যেমন পরিবেশ দরকার। কারা পরিবেশ নষ্ট করছে, কারা পুলিশের উপর হামলা করছে- এই পরিবেশ কি সংলাপের পরিবেশ, সংলাপ করতেও একটা যোগ্যতা লাগে।”

যেসময় দেশের সৃজনশীল লেখকেরা আক্রান্ত হচ্ছে এমন সময়ে সম্মাননা দেয়ায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ দেন ওবায়দুল কাদের।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা বলেন, এ পর্যন্ত আমরা ৪৫ জন সহকর্মীকে হারিয়েছি আমরা শুধু জীবিত সদস্য নয় মৃত সদস্যদের পাশেও আছি। এবারই প্রথম আমরা লেখকদের সম্মানী দিচ্ছি।

এবছর সম্মাননা প্রাপ্ত লেখকদের একটি ক্রেস্ট ও পাঁচ হাজার টাকা সম্মানী দেয়া হয়। সম্মাননাপ্রাপ্ত লেখকরা হলেন- বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার শামসুল আলম বেলাল, মানবজমিনের কাফি কামাল, জনকণ্ঠের কাওসার রহমান, মাইটিভির আমিরুল মোমেনীন মানিক, উত্তরবঙ্গ সংবাদের নির্মল চক্রবর্তী, ভোরের কাগজের শামসুজ্জামান শামস, এবিনিউজের শাহিন চৌধুরী, দি ইকোনমিক্স নিউজের শেখ মাহমুদ এ রিয়াত, এটিএন নিউজের ইশরাত জাহান ঊর্মি, উত্তেফাকের পিনাকী দাশগুপ্ত, সংগ্রামের শাহেদ মতিউর রহমান, আরটিভির মোহাম্মদ আকতার হোসেন, কালের কণ্ঠের ওমর ফারুক, সমকালের আলতাব হোসেন ও ইন্দ্রজিৎ সরকার, ইত্তেফাকের দেবব্রত মুখোপাধ্যায় ও চ্যানেল টুয়েন্টিফোরের আমিন আল রশীদ, ভোরের কাগজের ঝর্ণামনি, আজকের পত্রিকার এম উমর ফারুক, ইনকিলাবের মিজান মাহমুদ, আমার দেশের হাসান হাফিজ, অবজারভারের জীবন ইসলাম ।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সম্মাননা প্রাপ্ত লেখক শামসুল আলম বেলাল ও কবি হাসান হাফিজ। ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদ ও সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস হোসেন।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন কল্যাণ সম্পাদক শাহনাজ শারমীন।






মন্তব্য চালু নেই