মেইন ম্যেনু

বিদ্যুতের দাম আরো বৃদ্ধি করবে সরকার

সরকার বিদ্যুতের দাম ধাপে ধাপে আরো বৃদ্ধি করবে বলে জানিয়েছেন জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি সভাপ্রতি মো. তাজুল ইসলাম। রোববার বিকেলে জাতীয় সংসদে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বৃদ্ধিকে আমরা যৌক্তিক মনে করছি, উৎপাদন খরচের সঙ্গে সমন্বয়, আর্ন্তজাতিক বাজারের সাথে সমনযস্ব ও লোকসানি কেন্দ্রগুলোকে লাভজনক করতেই এ দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে। বর্তমানে মানুষের ক্রয় খমতা বৃদ্ধি পেয়েছে তাছাড়া ভারত-পাকিস্থানের তুলনায় আমাদের দেশে বিদ্যুতের দাম অনেক কম তাই সরকার সামনে আরো বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিচ্ছে।

তাজুল ইসলাম বলেন, বর্তমানে ১৪ ট্রিলিয়ন গ্যাস মজুদ রয়েছে। এই গ্যাস আস্তে আস্তে কমে আসছে। প্রাকৃতিক সম্পদ হিসেবে গ্যাসের মজুদের পরিমাণ ও আন্তর্জাতিক বাজারে প্রাকৃতিক গ্যাসের দামের সঙ্গে সমন্বয় করে দাম বৃদ্ধির প্রক্রিয়াটাও যৌক্তিক বলে মনে করে কমিটি।

কারণ হিসেবে মো. তাজুল ইসলাম বলেন, গ্যাসের ওপর নির্ভরশীল উৎপাদিত পণ্য রফতানির ক্ষেত্রে জ্বালানি খরচের ওপর নির্ভর করে বিক্রয়মূল্য নির্ধারণ করেন আন্তর্জাতিক ক্রেতারা। এক্ষেত্রে আমাদের গ্যাসের দাম কম থাকলে আমরাই আমাদের পণ্য আন্তর্জাতিক বাজারে বিক্রির ক্ষেত্রে লোকসানে থাকবো।

আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম কমা সত্ত্বেও দেশের বাজারে মূল্য বৃদ্ধি করা হচ্ছে কেন জানতে চাইলে তাজুল ইসলাম বলেন, ‘জ্বালানি তেলের দাম কমানোর জন্য জনগণের যে দাবি আছে সে দাবির প্রতি মন্ত্রণালয় সম্মান দেখাবে। কিন্তু আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কমাতে আমাদের দেশেও যে দাম কমাতে হবে এমন দাবির পক্ষে আমরা কিছু বলতে পারবো না।

তেল উৎপাদনকারী দেশগুলোতে অস্থিরতা চলছে বলেই তেলের দাম কমেছে, তবে কত দিন দাম কম থাকবে সেটাও আমরা নিশ্চিত নই। এ জন্য যেকোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে ভেবে দেখতে হবে।’তাছাড়া এতদিন বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (বিপিসি) ভর্তুকি ও লোকসান দিয়ে জ্বালানি তেল সরবরাহ করে এসেছে , তাদের আমরা লোকসান কাটিয়ে উঠার জন্যএকটু সময় দিচ্ছি।

এদিকে, বৈঠকে দেশে ২৫ বছর বা তার চাইতেও বেশি দিনের ২২টি বিদ্যুৎকেন্দ্রের উৎপাদন ক্ষমতা বাড়াতে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করেছে কমিটি। এসব কেন্দ্রের পুরনো যন্ত্রপাতি সংস্কার ও পরিবর্তনের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদনে জ্বালানি খরচ কমানোরও সুপারিশ করা হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই