মেইন ম্যেনু

বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে বিএনপি

যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিতে শুরু করেছে বিএনপি।

সোমবার রাজশাহীর দুই মেয়র প্রার্থীকে দলীয় শৃঙ্খলা পরিপস্থি কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে বহিষ্কার করেছে কেন্দ্রীয় কমিটি। শুধু রাজশাহী নয়, সারাদেশে যারা বিএনপির বিদ্রোহী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন রাজশাহী জেলা বিএনপির কয়েকজন নেতা।

বহিষ্কৃতরা হলেন-রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার পৌর বিএনপির সভাপতি ও পৌরসভার মেয়র প্রার্থী কায়েম উদ্দিন সরদার ও বাঘা উপজেলার আড়ানী পৌর বিএনপির আহ্বায়ক ও পৌরসভার মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মাস্টার।

সোমবার বিকেলে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত ফ্যাক্স বার্তার মাধ্যমে তাদের দুইজনের বহিষ্কার করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির অন্যতম সদস্য চারঘাট উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবু সাঈদ চাঁদ।

বিএনপি নেতা আবু সাঈদ চাঁদ জানান, আসন্ন পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চারঘাট পৌরসভা নির্বাচনে পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র জাকিরুল ইসলাম বিকুলকে এবং বাঘা উপজেলার আড়ানী পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি তোজাম্মেল হককে কেন্দ্রীয় কমিটি দলীয়ভাবে মনোনয়ন প্রদান করেন। কিন্তু দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে চারঘাটে কায়েম উদ্দিন এবং আড়ানীতে নজরুল ইসলাম মাস্টার দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে পৌর নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন।

কেন্দ্র থেকে একাধিকবার দলীয় আদেশ অমান্য করে নির্বাচনে অংশগ্রহণ থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ করা হলেও তারা দুজন তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেননি। এ কারণেই তাদের দলের গঠনতন্ত্রের ৫ (গ) ধারা মোতাবেক বিএনপির প্রাথমিক সদস্যপদসহ সকল পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে বহিষ্কৃত চারঘাট পৌর বিএনপির সভাপতি ও মেয়র প্রার্থী কায়েম উদ্দিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘দলের বাইরে গিয়ে নির্বাচন করছি। দল আমাকে বহিষ্কার করবে এমনটা মেনেই নির্বাচনে নেমেছি। তবে এখন পর্যন্ত বহিষ্কারের চিঠি আমার কাছে এসে পৌঁছায়নি।’

অপরদিকে, আড়ানী মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলামের বহিষ্কার প্রসঙ্গে বাঘা উপজেলা বিএনপির সভাপতি নুরুজ্জামান খান মানিক জানান, ‘দলীয় শৃঙ্খলা অমান্য করার অভিযোগে নজরুল ইসলামকে দলীয় প্রাথমিক সদস্য পদসহ সকল পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।’

এ ব্যাপারে মেয়রপ্রার্থী নজরুল ইসলাম বলেন, ‘এখনও বহিষ্কারের চিঠি আমার কাছে আসেনি। দল বহিষ্কার করতেই পারে।’

এদিকে, চারঘাট ও আড়ানীতে বিদ্রোহী দুই প্রার্থীকে বহিষ্কার করায় সব ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে দলীয় মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে ভোট করার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম সদস্য আবু সাঈদ চাঁদ।






মন্তব্য চালু নেই