মেইন ম্যেনু

বিধবাকে ধর্ষনের মুল্য ৮০ হাজার টাকা! সেটাও মেরে দিলো মেম্বার

পাবনার চাটমোহর উপজেলার ফৈলজানা ইউনিয়নের নেংড়ী কৃষ্ণরামপুর গ্রামে এক বিধবা মহিলাকে জোরপূর্বক ধর্ষনের ঘটনায় গ্রাম্য শালিসে মোটা টাকা জরিমানা করে তা হাতিয়ে নিয়েছেন স্থানীয় এক মেম্বার।

অভিযোগ উঠেছে, জরিমানার টাকা ওই বিধবাকে দেওয়া কথা থাকলেও ৮০ হাজার টাকার ১ টাকাও চোখে দেখেনি ওই ধর্ষিতা বিধবা। নিরুপায় বিধাব রাহেলা পাবনায় নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

অভিযোগে জানা যায়, ফৈলজানা ইউনিয়নের নেংড়ী কৃষ্ণরামপুর গ্রামের মৃত মকলেছুর রহমানের স্ত্রী রাহেলা খাতুন (৩৬) কে একই গ্রামের বাবলুর ছেলে চায়ের দোকানি মোঃ সুজন (২৫) গত ২০ মে গভীর রাতে রাহেলার বাড়ির ঘরের বেড়া কেঁটে ভেতরে ঢুকে ধর্ষন করে। পরে রাহেলা সুজনের পিতা-মাতাকে বিষয়টি জানালে সুজনের পরিবার বিয়ে দেওয়ার আশ্বাস দেন।

এ দিকে রাহেলা শারিরিক অবস্থা পরিবর্তন লক্ষ্য পাবনায় আল্ট্রাসনোগ্রাম করে জানতে পারে সে আড়াই মাসের অন্তঃস্বত্বা। ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হলে ৬ জুলাই রাতে স্থানীয় ইউপি সদস্য মাহবুবর রহমান মাবুল গোপন শালিশে সুজন কে ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করে।

রাহেলা জানায়, ৮০ হাজার টাকার ১ টাকাও আমি চোখে দেখিনি’। তিনি জানায়, ইউ,পি সদস্য মাবুলের কাছে টাকা চাইতে গেলে টাকা দেওয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে। এ ঘটনার পর গত ১০ আগষ্ট রাহেলা বাদি হয়ে পাবনা আদালতে মামলা দায়ের করেছেন।

বিষয়টি ধামাচাঁপা দেওয়ার জন্য ইউ,পি সদস্য মাবুলের পরামর্শে গত ৭ আগষ্ট সুজনের পরিবার সুজনকে অন্যত্র বিয়ে দেয়। এ ব্যাপারে থানা পুলিশকে ম্যানেজ করেছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা বলে জানা গেছে।






মন্তব্য চালু নেই