মেইন ম্যেনু

বিধাতার কি লিলা, চৈত্রের প্রচণ্ড তাপদাহের মধ্যেও ঘন কুয়াশা!

বিধাতার কি লিলা, প্রচণ্ড তাপদাহের মধ্যেও ঘন কুয়াশায় যেন অন্ধকার নেমে এসেছে। যে কারণে রোববার সকাল ৯টার আগে সূর্যের দেখা মেলেনি জেলার বেশির ভাগ এলাকায়।

সারাদেশের মতো প্রচণ্ড তাপদাহ ছিল ঠাকুরগাঁওয়ে। প্রচণ্ড তাপদাহের মধ্যে ঘন কুয়াশা থাকায় সেখানকার লোকজন সকাল ৯টার আগে সূর্যের দেখা পাননি।

চৈত্রের শেষদিকে এসে প্রচণ্ড তাপদাহেও ঘন কুয়াশা থাকায় ঠাকুরগাঁও জেলা সড়কে হেডলাইট জ্বালিয়ে যানবাহন চলাচল করতে দেখা গেছে।

ঠাকুরগাঁওয়ে কনকনে শীতের সকালে এমন কুয়াশা স্বাভাবিক হলেও বসন্তের সকালে ভ্যাপসা গরমের মাঝে কুয়াশা পড়তে দেখা যায় না। শীত মৌসুমে উত্তরের এ জেলার সড়কে হেডলাইট জ্বালিয়ে যানবাহন চলাচল করে। কিন্তু রোববারের ঘন কুয়াশা যে শীতের আমেজ এনে দিয়েছে।

স্থানীয়রা বলেন, এর আগে চৈত্র মাসে এমন ঘন কুয়াশা এ অঞ্চলে দেখা যায়নি। কুয়াশা দেখে মনে হয়, শীতের আগাম জানান দিচ্ছে। কেউ কেউ বলছেন, এটি এক ধরনের দুর্যোগ বলা যায়। মিন তারতম্য মানুষের শরীরের জন্য মোটেই উপযোগী নয়।

ঠাকুরগাঁও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে রক্ষিত তাপমাত্রা পরিমাপক যন্ত্রে সকাল ৮টায় তাপমাত্রা ছিল ৩১ দমমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। দুপুর ২টায় ছিল ৩৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই