মেইন ম্যেনু

বিধ্বস্ত বিমানে সাড়ে ৩ কোটির বেশি টাকা ছিল

ইন্দোনেশিয়ায় রোববার যে যাত্রীবাহী বিমানটি বিধ্বস্ত হয়েছে এতে সাড়ে তিন কোটির বেশি টাকা ছিল বলে রয়টার্স জানিয়েছে। পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশের দরিদ্র পরিবারগুলোর মধ্যে বিতরণের জন্য ওই টাকা বহন করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। তবে বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার সঙ্গে ওই বিপুল পরিমাণ অর্থের সম্পর্ক রয়েছে কিনা তা অবশ্য জানা যায়নি।

রোববার ৫৪ জন আরোহী নিয়ে পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ পাপুয়ার রাজধানী জায়াপুরার সেনতানি বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়নের মাত্র অধঘণ্টা পরেই নিখোঁজ হয়েছিল বিমানটি। পরে পাপুয়ার এক প্রত্যন্ত পাহাড়ি এলাকা বিনতাংয়ে এর ধ্বংসাবশেষের খোঁজ মেলে। তবে ওই বিধ্বস্ত বিমানের কোনো আরোহী আর বেঁচে নেই বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ইন্দোনেশিয়ার পরিবহণমন্ত্রী জানিয়েছেন, পাপুয়া অঞ্চলের পাহাড়ি এলাকায় খুঁজে পাওয়া ওই ধ্বংসাবশেষ পরীক্ষা করে দেখার জন্য সোমবার ঘটনাস্থলে ছুটে গেছে উদ্ধারকারী দল। এছাড়া উদ্ধারকাজে অংশ নিতে একটি ছোট বিমানও সেখানে পাঠানো হয়েছে।

bimanএদিকে সোমবার ইন্দোনেশিয়ার ডাকবিভাগের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ৫৪ আরোহীর পাশাপাশি ওই বিমানে সাড়ে ছয় বিলিয়ন রুপাইয়া (৪ লাখ ৭০ হাজার ডলার) ছিল। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ৩ কোটি ৬০ লাখ ২৩ হাজার ৬শ।

হারায়োনো নামের ওই কর্মকর্তা আরো জানিয়েছেন, টাকাগুলো রাখা ছিল চারটি আলঅদা ব্যাগে এবং এক একটি ব্যাগের পাহাড়ার জন্য বিমানটিতে একজন করে মোট চার নিরাপত্তা কর্মী রাখা হয়েছিল।

biman






মন্তব্য চালু নেই