মেইন ম্যেনু

বিপদের মধ্যে বিপদে বিএনপি

বিপদ যেন পিছু ছাড়ছে না বিএনপির। বিপদের মধ্যে বিপদে পড়ছে দলটি। একদিকে সরকার আরেকদিকে নিজেদের মধ্যে বিবাদ। কি করে ঘুরে দাঁড়াবে বিএনপি?

কথা ছিল জাতীয় কাউন্সিলের পর ঘুরে দাঁড়াবে বিএনপি। দলের ৬ষ্ঠ কাউন্সিলকে ঘিরে নেতাকর্মীদের মধ্যে আনন্দ-উচ্ছ্বাসেরও কমতি ছিল না। কিন্তু আন্তর্জাতিক, অভ্যন্তরীণ রাজনীতি কোনোদিক থেকেই সুবিধা করতে পারছে না বিএনপি।

ঘরে-বাইরে একের পর এক দুর্ঘটনায় বিপর্যয়ের মুখে পড়ছে দলটি। সে কারণেই পিছিয়ে পড়ছে বিএনপি। সভা-সমাবেশে বক্তব্য-বিবৃতির মধ্যেই সীমাবদ্ধ বিএনপি নেতারা।

কাউন্সিলের পর যে গতিতে বিএনপির ঘুরে দাঁড়ানোর কথা ছিল সেটি যেন তলিয়ে যাচ্ছে। আন্তর্জাতিক মহল সব দলের অংশগ্রহণে সুষ্ঠু নির্বাচনের কথা বললেও তাদের কথায় পাত্তা দিচ্ছে ক্ষমতাসীন সরকার। নিজেদের অবস্থানে অটল রয়েছে।

এর মধ্যে বিএনপির অভ্যন্তরীণ রাজনীতিক কোন্দল দলটিকে আরো পেছনের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে শ্রমিক দলের সহ-সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বাবুল সরদার ও আবু কাওসার ভূঁইয়াকে কুপিয়ে জখম করার ঘটনা সে ইঙ্গিতই বহন করে।

বাবুল সর্দার ধানমণ্ডি থানা শ্রমিক দলের সহ-সভাপতি ও মহানগরের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং আবু কাউসার ভূইয়া ধানমণ্ডি থানা শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক ও মহানগরের দপ্তর সম্পাদক।

রোববার বিকেলে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এ ধরনের ঘটনা নিজেদের কোন্দলের কথা জানান দিচ্ছে। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা ও বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলামরা যেখানে অসুস্থ, তাদের সুস্থতা কামনায় সেখানে মিলাদ-মাহফিল আয়োজনের অনুষ্ঠানে কি করে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে- এটা জাতিকে ভাবিয়ে তুলেছে।

অথচ সেই মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান। জানা গেছে, সেই হামলার ঘটনা নাকি বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার নাসির ওয়াসিমের হুকুমে হয়েছে।

তবে কী কারণে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে তা জানাতে পারেননি উত্তরের শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন ও দক্ষিণের সভাপতি আমির খসরু।

এদিকে ভারতে ইসরাইলি গোয়েন্দা সংস্থা ‘মোসাদ’র এজেন্টের সাথে বাংলাদেশ সরকার উৎখাত পরিকল্পনার বৈঠকের অভিযোগে বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব আসলাম চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সরকার উৎখাত করতে বিএনপি ইসরাইলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের সঙ্গে আঁতাত করছে- সম্প্রতি গণমাধ্যমে এমন খবর প্রকাশিত হলে টনক নড়ে সরকারের। এরই পরিপ্রেক্ষিতে তাকে আটক করা হয়।

ইসরাইলের লিকুদ পার্টির নেতা মেন্দি এন সাফাদির সঙ্গে সাক্ষাতের কথা স্বীকারও করেছেন আসলাম। তবে সরকার উৎখাতের পরিকল্পনা নিয়ে তার সঙ্গে বৈঠকের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তিনি।






মন্তব্য চালু নেই