মেইন ম্যেনু

সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে

বিপুল উৎসাহ উদ্দীপণায় সম্পন্ন হলো কলারোয়া পৌরসভার ভোট গ্রহন

সকল জল্পনা কল্পানর অবসান ঘটিয়ে অবশেষে দ্বিতীয় বারের মত অনুষ্ঠিত কলারোয়া পৌরসভার ভোট গ্রহন অবাধ,নিরপেক্ষ,

বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে সম্পন্ন হলো। সকাল ৮ থেকে শুরু হয়ে বিরতীদীন ভাবে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত চলে এ ভোট গ্রহণ।

সকালে দুটো কেন্দ্রে সমান্য গোলযোগের সৃষ্টি হলেও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর তড়িৎ হস্তক্ষেপে তা আর বেশী দুর এগুতে পারেনি। প্রচন্ড শৈত্য প্রবাহকে উপেক্ষা করে শত শত মহিলা ভোটার দের লম্বা লাইন দিয়ে ভোট দেওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে দেখা গেছে। প্রতিটি কেন্দ্রে তুলনামূলক ভাবে পুরুষের চেয়ে মহিলা ভোটরের সংখ্যা ছিল বেশী। পুরুষ ভোটারের সংখ্যা কম এর কারন অনুসন্ধান করতে গিয়ে জানা গেছে কলারোয়া উপজেলার পৌর সভা এলাকাটি জামায়াত ও বিএনপি সংখ্যাগরিষ্ঠ এলাকা। এমন অনেক ওয়ার্ড আছে যেখানে সরকার দলীয় ভোটারের চাইতে জামায়াত বিএনপি’র ভোটারের সংখ্যা অনেক বেশী। ২০১৩ সালের নাশকতা , আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীদের হত্যা মামলা এবং প্রধান মন্ত্রীর গাড়ী বহরে হামলার মামলায় বিরোধী দলের অনেক নেতা কর্মী জেলে আছেন অথবা ভিন্ন এলাকায় আতœগোপন করে আছেন। আর এ কারনে ভোট কেন্দ্র গুলোতে পুরুষের সংখ্যা কম ছিল বলে এলাকা অধিকাংশ মানুষের অভিমত।

ভোট শেষ হয়েছে এখন চলছে গননা। কেন্দ্রের বাইরে অপেক্ষামান পৌরসভার ১ নং তুলশীডাঙ্গা ওয়ার্ডের অধিবাসী আনোয়ার হোসেন মিঠু জানান, ভোট অবাধ ও নিরপেক্ষ হয়েছে। জনগন শতস্ফুর্তভাবে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। ৩নং ওয়ার্ড গদখালী গ্রামের অধিবাসি ও কলারোয়া বাজার ব্যবসায়ী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক শওকত হোসেন জানান, কোন গন্ডগোল মারামরি ছাড়াই এভাবে যে ভোট গ্রহন শেষ হবে তা আমরা কোন দিন চিন্তাই করিনি। সরকারের কাছে দাবী আগামী নির্বাচন গুলো যেন এমনিভাবে সম্পন্ন হয়। ভোট কেন্দ্র গুলোতে সব চেয়ে বেশী উপস্থিতি ছিল মহিলা ভোটারের। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মহিলা ভোটার শারমীন হোসইন জানান, ভোট দেওয়ার পরিবেশ সম্পূর্ণ সুষ্ঠু ছিল। কোন প্রকার সংঘর্ষ বা হানাহানির কোন পরিবেশ তৈরী না হওয়ার কারনেই মহিলাদের উপস্থিতি বেশী ছিল। তিনি আরো জানান, সবারই একটা ধারনা ছিল ভোট গ্রহণে ব্যাপক সংঘর্ষ হতে পারে কিন্ত প্রশাসনের ব্যাপক হস্তক্ষেপ ও কড়া নজরদারীর কারনে সেটা হয়নি। জনগন বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা ও ঈদের আনন্দ আমেজে ভোট দিতে পেরেছেন।তিনি আরো জানান, যেমন সুন্দর সুষ্ঠভাবে ভোট গ্রহন শেষ হয়েছে। আমরা বাইরে উদ্রিগ হয়ে অপেক্ষা করছি। ভোটের ফলাফলটা ও যেন সঠিক হয়।

কোন প্রকার সংঘাত সংঘর্ষ ছাড়াই বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে কলারোয়া উপজেলার ভোট গ্রহন সম্পন্ন করতে পেরে কলারোয়া প্রশাসন সহ এলাকার হাজারো জনগন বেশ খুশি। ভবিষ্যতের নির্বাচন গুলো এমনি ভাবেই সম্পন্ন হবে এটাই তাদের এক মাত্র প্রত্যাশা।






মন্তব্য চালু নেই